১২ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং শুরু হলো ৪র্থ এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ার-২০১৫

শুরু হলো ৪র্থ এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ার-২০১৫

0

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকাঃ “বর্তমান সরকারের অগ্রাধিকার শিল্পের তালিকার মধ্যে পর্যটন শিল্প স্থান পেয়েছে। পর্যটন শিল্পের উন্নয়নের জন্য সরকার নানা ধরনের মেগা প্রকল্প ও কর্মসূচি গ্রহন করেছে।” ৪র্থ এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ার-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কথাগুলো বলেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, এম পি।

বর্ণাঢ্য আয়োজনে ২৭শে আগস্ট ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি, বসুন্ধরায় শুরু হয়েছে তিন দিন ব্যাপী ৪র্থ এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ার। পর্যটন বিচিত্রার আয়োজনে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড (বিটিবি) ও বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন (বিপিসি) এর সার্বিক সহযোগিতায় ২৭-২৯ আগস্ট মেলা অনুষ্ঠিত হবে।

????????????????????????????????????

২৭ আগস্ট সকাল ১১ টায় মেলার উদ্বোধন করেন বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন(এমপি)। অনুষ্ঠানে তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পের উন্নয়নের লক্ষ্যে বর্তমান সরকার গুরুত্বপূর্ণ কিছু সিদ্ধান্ত গ্রহন করতে যাচ্ছে। ২০১৬ কে পর্যটন বর্ষ ঘোষনা করা হয়েছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অপরুপ চৌধুরী পি.এইচ.ডি, চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন। অনুষ্ঠানে গেস্ট অব অনার হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মান্যবর এইচ. কে শ্রেষ্ঠা, রাস্ট্রদুত-নেপাল, মান্যবর ভিনসেন্ট ভিবেনসিউ টি বান্ডিলো, রাস্ট্রদুত-ফিলিপাইন, মান্যবর ম্যাডাম পেমা চোদেন, রাস্ট্রদুত-ভুটান, জনাব চেং সুয়াং, কালচারাল কাউন্সিলর-চীন এবং দেশি বিদেশি পর্যটন শিল্প সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন পর্যটন বিচিত্রার সম্পাদক ও এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ার এর প্রধান সমন্বয়কারী মহিউদ্দিন হেলাল।

আসন্ন শীত মৌসুমকে সামনে রেখে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ১২০টি স্টলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ার (এটিএফ-ঢাকা) ২০১৫। এ বছরের মেলায় হোস্ট কান্ট্রি বাংলাদেশ। এছাড়াও থাকছে ভারত, ফিলিপাইন, নেপাল, ভূটান, চীন, উজবেকিস্তান ও সিঙ্গাপুর এর পর্যটন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান সমূহ।

এছাড়া মেলায় থাকবে বৈচিত্রময় আয়োজন যেমন কমিউনিটি বেইজ ট্যুরিজম প্রদর্শনী, ইযুথ ট্যুরিজম স্কিলস কম্পিটিশন, পর্যটন বিষয়ক সেমিনার, কমিউনিটি কালচারাল অনুষ্ঠান, শিশুদের জন্য “বিউটিফুল বাংলাদেশ” শিরোনামে আর্ট কম্পিটিশন, যুব পর্যটনকে উৎসাহিত করতে এ্যাডভেন্সার গিয়ার প্রদর্শনীর ব্যবস্থা।এই মেলার মাধ্যমে পর্যটন শিল্পের একটি পূর্ণাঙ্গ চিত্র দর্শনার্থীদের মাঝে তুলে ধরার প্রচেষ্টা থাকবে।

মেলার প্রবেশ মূল্য ২০ টাকা। তবে প্রতিটি টিকেটের বিপরীতে থাকছে আকর্ষনীয় র‌্যাফেল ড্র ও ভ্রমণ ভাউচার। তবে শিক্ষার্থীদের জন্য প্রবেশ ফ্রি।

ATF 4

মেলার প্লাটিনাম স্পন্সর হিসাবে রয়েছে ইসলামি ব্যাংক বাংলাদেশ লি:। ডেভেলপমেন্ট পার্টনার হিসাবে ইউ.এস এইড ক্রেল প্রকল্প, আই.এস.সি ট্যুরিজম, কানাডা ও বাংলাদেশ সরকার এর সহায়তায় আই.এল.ও বিসেপ প্রকল্প, রিসোর্ট পার্টনার-দ্যা প্যালেস্ , এয়ারলাইন্স পার্টনার- ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ, ভেনু পার্টনার- আই.সি.সি.বি, ক্রুজ পার্টনার- এম.ভি ফ্লেমিংগো, লজিস্টিক পার্টনার- কনভয় গ্রুপ, শিপিং লাইন পার্টনার- আফরোজ শিপিং লাইন, রেডিও পার্টনার- রেডিও স্বাধীন ৯২.৪ ও এন্টারটেইনমেন্ট পার্টনার হিসাবে রয়েছে ফ্যান্টাসি কিংডম।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের কমিউনিটি বেইজড ট্যুরিজম-এর উন্নয়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন, বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড ও ইউএস এইড ক্রেইল প্রজেক্ট এবং নেসক্যাফে এর সাথে “সিবিটি পার্টনারশীপ” এর শুভ সূচনা হয়।

বাংলাদেশের পর্যটন শিল্পকে এক ধাপ এগিয়ে নিতে দেশের পর্যটন আকর্ষণসমূহকে দেশ বিদেশের মানুষের কাছে আরো জনপ্রিয় করা এবং আঞ্চলিক পর্যটন শিল্পের সঙ্গে সেতুবন্ধন সৃষ্টি এই মেলা আয়োজনের উদ্দেশ্য। ৪র্থ এশিয়ান ট্যুরিজম ফেয়ার ২০১৫ আয়োজনের মধ্য দিয়ে দেশের প্রতিটি দর্শনীয় স্থানে ছড়িয়ে পড়বে পর্যটকদের আনন্দ মিছিল- আয়োজকেরা এমনটাই প্রত্যাশা করছেন।

নিউজবিডি৭১/এ আর/ইদ্রিস/ ২৭ আগস্ট, ২০১৫

image_print
Share.

Leave A Reply