১২ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য সব দলকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে
Mountain View

শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য সব দলকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে

0
image_pdfimage_print

নিউজবিডি৭১ডটকম

ঢাকা:  একটি শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য সব দলকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। রাজনৈতিক বিভক্তির উর্ধ্বে ওঠে কিছু বিষয়ে সকলকে একমত হয়ে কাজ করতে হবে। না হলে সংঘর্ষ, হানাহানি বন্ধ হবে না। এমন অভিমত আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টির নীতি নির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক নেতার। আজ বুধবার দুপুরে রাজধানীর হোটেল ওয়েস্টিনে অনুষ্ঠিত ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনাল আয়োজিত ‘শান্তিতে বিজয়’ পুরস্কার বিরতণী অনুষ্ঠানে দেশের বেশ কয়েকজন গুরুত্বপূর্ণ রাজনীতিবিদ এমন অভিমত জানান।

অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগ বিএনপি, জাতীয় পার্টির একাধিক গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রীয় নেতা উপস্থিত ছিলেন। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আব্দুল মঈন খান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ, জাতীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলুসহ ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের পদস্থ কর্মকর্তারা বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে এইচটি ইমাম বলেন, এবারের নির্বাচনে আমাদের দেশের প্রায় প্রতিটি দলই অংশগ্রহণ করছে। এটা আমাদের জন্য গর্বের। আমাদের সবার দায়িত্ব নির্বাচনে সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখা। এছাড়া শুধুমাত্র নির্বাচনের লড়াইকে কেন্দ্র করে কোনভাবেই আমাদের নিজেদের পৃথক করা যাবে না বা উচিত না। আর নির্বাচন শান্তিপূর্ণ করতে আমাদের একসঙ্গেই কাজ করতে হবে।’

আব্দুল মঈন খান বলেন, ‘শুধু একটি বা দুইটি দল নয়, নির্বাচন সুষ্ঠু রাখতে সব দলকেই শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখতে হবে। তবে আমরা কবরে যে ধরনের শান্তির কথা বলা হয়ে থাকে, সেটি চাই না। আমরা বিচারের ক্ষেত্রে শান্তি চাই। এটা আমাদের জন্য দুর্ভাগ্য যে দেশ এখন দু’টি রাজনৈতিক ভাগে বিভক্ত হয়ে গেছে। তবে আমরা সবাই একসঙ্গে। আর এখন আমাদের সামনে নতুন যে সমস্যা, জাতীয় নির্বাচন শান্তিপূর্ণ করা, তার জন্য আমাদের সবার একত্রে কাজ করতে হবে।’

আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘এ হলের মতো সব রাজনৈতিক দলের সহবস্থানের চিত্র সারাদেশে করতে পারলে দেশের চিত্রই বদলে যেতো। কিছু মানদণ্ডের উপর ভিত্তি করে দেশের শান্তি নির্ভন করে। সেগুলো ল্য রাখতে হবে। আমাদের একমত হয়ে কাজ করতে হবে। আর সব থেকে বড় যে ব্যাপার, তা হলো আমরা মতায় গেলে সবকিছু একপাকি হয়ে যায়, এখান থেকে আমাদের বের হয়ে আসতে হবে।’

জিয়া উদ্দিন বাবলু বলেন, ‘আমরা জনগণের ভোটে বিশ্বাস করি। সম্মিলিতভাবে মিলেমিশে কাজ করলেই দেশ এগিয়ে যাবে।’

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, ডেমোক্রেসি ইন্টারন্যাশনালের পার্টি প্রধান কেটি ক্রোক এবং সিইও গ্লেইন কোয়ান। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ক্ষেত্রে শান্তিতে অবদানের জন্য দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোর নেতাদের সম্মাননা দেওয়া হয়।

নিউজবিডি৭১/বিসিপি/ ৫ ডিসেম্বর, ২০১৮

Share.

Comments are closed.