১২ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং জানান দিয়েই ফিরছেন সৌম্য
Mountain View

জানান দিয়েই ফিরছেন সৌম্য

0
image_pdfimage_print

নিউজবিডি৭১ডটকম 
ঢাকা : টেস্টে ফেরার ‘টেস্ট’টা ভালোই হলো সৌম্য সরকারের। এক বছর পর ফিরছেন সাদা পোষাকে। ওয়ানডে দলেও ছিলেন আসা-যাওয়ার মধ্যে, একমাত্র সম্বল টি-টোয়েন্টতেও ছিলেন না অফ দ্য মার্ক। সেই সৌম্যের হঠাৎ টেস্ট দলে ডাক পাওয়া অনেকটা অনুমিতই ছিল জাতীয় লিগের সাফল্যমোড়ানো জাতীয় লিগের পর। তার পরও ঘরোয়া ক্রিকেট আর আন্তর্জাতিক প্রতিপক্ষের ফারাকটা ভুলে গেছেন কি না তার সাক্ষর রাখতে দুই দিনের প্রস্তুতি ম্যাচই ছিল এই ওপেনারের এসিড টেস্ট। সেই পরীক্ষায় বেশ ভালোভাবেই উৎরে গেছেন সৌম্য। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বিসিবি একাদশের হয়ে তার ব্যাটে দেখা গেছে চেনা দাপট। সাবলীল ব্যাট চালিয়ে খেলেছেন ৭৮ রানের ইনিংস।

টেস্ট দলে ফেরায় প্রস্তুতি ম্যাচটায় মূল নজর ছিল সৌম্যের দিকে। আগের দিন বলেছিলেন, উইকেটে গিয়ে সময় কাটাতে চান। সেই চিন্তা থেকেই শুরুতে উইকেটে থিতু হতে নিয়েছেন সময়, ছিলেন বাড়তি সতর্ক। ব্যাটিংয়ের জন্যে বেশ ভালো উইকেটে এরপর পুরো প্রভাব বিস্তার করে খেলতে থাকেন তিনি। তিন পেসার শ্যানন গ্যাবব্রিয়েল, কেমার রোচ, কেমো পলদের সামলেছেন কোনরকম সমস্যা ছাড়াই। সবচেয়ে বেশি স্বচ্ছন্দ ছিলেন লেগ স্পিনার দেবেন্দ্র বিশুর বলে।

লাঞ্চের পর বাড়ান রানের গতি। ১০ চারের সঙ্গে মেরেছেন তিন ছক্কা। তার একটি স্লগ সুইপ করে মিডউইকেট দিয়ে, অন্য দুটি এগিয়ে এসে চালিয়েছেন সোজা ব্যাটে। ইনিংসটি হতে পারত আরও বড়। বোলারদের কোন সুযোগ না দিয়ে এগিয়ে যাচ্ছিলেন তিন অঙ্কের দিকেই। বাঁহাতি স্পিনার জুমেল ওয়ারিকানের বলে ডিফেন্স করতে গিয়ে ১০৩ বলে ৭৮ রানে ক্যাচ দেন শর্ট লেগে।

দলে আসা যাওয়ার মধ্যে থাকা সৌম্য এই মুহূর্তে আছেন চেনা ছন্দে। রান পাচ্ছেন সবখানেই। এবার জাতীয় লিগে ৫ ম্যাচ খেলেই করেছেন ৪৭১ রান। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সর্বশেষ ওয়ানডেতে করেছেন সেঞ্চুরি। তার আগে প্রস্তুতি ম্যাচেও ওদের বিপক্ষে সেঞ্চুরি এসেছিল তার ব্যাট থেকে। এবার প্রস্তুতি ম্যাচেও রাখলেন সেই ছাপ।

চট্টগ্রাম এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে আগের দিনের ৩০৩ রান নিয়ে আর ব্যাট করতে নামেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সাদমান ইসলামকে নিয়ে তাই দিনের শুরু থেকেই ব্যাট করতে নামেন সৌম্য। দুই ওপেনার মিলে তোলেন ১২৬ রান। সৌম্যের দাপটে কিছুটা আড়ালে পড়লেও সাদমান ইসলাম ছিলেন ছন্দে। রান আউট হওয়ার আগে করেন ৭৩ রান। চট্টগ্রাম টেস্ট দলের আরেক সদস্য মিঠুন খেলেছেন ২৭ রানের ইনিংস। তবে ফের ব্যর্থ বাদ পড়া লিটন দাস, মাত্র এক রানেই ফিরেছেন এই ওপেনার। ড্র ম্যাচের দ্বিতীয় ও শেষ দিনে ৫ উইকেটে ২৩২ রান তোলে বিসিবি একাদশ।
আগামী ২২ নভেম্বর থেকে শুরু হতে যাওয়া চট্টগ্রাম টেস্টের জন্য পূর্বে ঘোষিত ১৩ জনের দলে ওপেনার ছিল কেবল দু’জন। ইমরুল কায়েসের সঙ্গে সৌম্যর ওপেন করতে নামা তাই অনেকটাই নিশ্চিত। তবে গতকাল সাদমানের দারুণ এই ব্যাটিং দ্বার খুলে দিয়েছে টেস্ট অভিষেকের। প্রস্তুতি ম্যাচের শুরু থেকেই দেখিয়েছেন দৃঢ়তা। শ্যানন গ্যাবব্রিয়েল, কেমার রোচ, কেমো পলদের শর্ট বলেও তাকে সাবলিলভাবে ব্যাট চালাতে দেখা গেছে। চা বিরতির আগে ৭৩ রানের ইনিংসটি শেষ হয়েছে রান আউটে। উইকেটে ছিলেন ২৩০ মিনিট, খেলেছেন ১৬৯ বল।

বাংলাদেশ দলের অনুশীলন ছিল জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে। কিন্তু সেটি ফেলে কোচ স্টিভ রোডস সকাল থেকে এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে। কোচের সামনে এমন ব্যাটিং করাতেই হয়ত কপাল খুলে গেছে ২৩ বছর বয়সী ঢাকার এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের। অবশ্য টেস্ট দলে ডাক পাওয়ার মতো নৈপুন্য এ বছর জাতীয় লিগে তিনি করে দেখিয়েছেন। ৬ ম্যাচ খেলে ৬৪.৮০ গড়ে করেছেন সর্বোচ্চ ৬৪৮ রান। তার ব্যাট থেকে এসেছে দুই সেঞ্চুরি আর তিন ফিফটি। ফতুল্লায় ঢাকা বিভাগের বিপক্ষে দ্বিতীয় রাউন্ডে খেলেছেন ক্যারিয়ার সেরা ১৮৯ রানের ইনিংস।

চট্টগ্রাম টেস্টের বাংলাদেশ দল
সাকিব আল হাসান (অধিনায়ক), সৌম্য সরকার, ইমরুল কায়েস, মোহাম্মদ মিঠুন, মুমিনুল হক, মুশফিকুর রহিম, আরিফুল হক, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, মুস্তাফিজুর রহমান, তাইজুল ইসলাম, নাঈম হাসান, সৈয়দ খালেদ আহমেদ ও সাদমান ইসলাম।

নিউজবিডি৭১/বিসি/নভেম্বর ২০২০১৮

Share.

Comments are closed.