১৪ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং রূপগঞ্জে কৃত্তিম পা পেলো জন্মগত এক‘পা’হীনা শিক্ষার্থী আছমা
Mountain View

রূপগঞ্জে কৃত্তিম পা পেলো জন্মগত এক‘পা’হীনা শিক্ষার্থী আছমা

0
image_pdfimage_print

নিউজবিডি৭১ডটকম
রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের জাঙ্গীর এলাকার জন্মগত এক পা হীনা দিনমজুর জাফর আলীর মেয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী আছমা আক্তারকে কৃত্তিম পা দান করলেন কলামিষ্ট গবেষক ও রূপগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি লায়ন মীর আব্দুল আলীম। এতে শিক্ষার্থী আছমার মুখে হাসি ফুটেছে । স্বপ্ন পূরন হয়েছে দরিদ্র অভিভাবক আছমার মা আছিয়া বেগমের। কারন, অন্য স্বাভাবিকদের সাথে তালমিলিয়ে পায়ে হেটে বিদ্যালয়ে যাতায়াত করতে পারছে আছমা। সে বড় হয়ে চিকিৎসক হবে ; দু‘চোখে স্বপ্ন তার।

আব্দুল হক ভুঁইয়া ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের পরিচালক মনিরুল হক ভুইয়া জানান, তার বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী আছমা। প্রতিদিনের ন্যায় খুড়িয়ে খুড়িয়ে দেড়কিলোমিটার পথ হেটে বিদ্যালয়ে যাতায়াত দৃশ্য চোখে পড়ে একই বিদ্যালয়ের ৪র্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী মাহিরা তাসফি প্রভার পিতা মাহবুব আলম প্রিয়‘র। তিনি প্রথমে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এক পায়ে তার হাটার দৃশ্য প্রচার করে। এতে নজর কাড়ে রূপগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি কলামিষ্ট লায়ন মীর আব্দুল আলীম সাহেবের। তিনি তাৎক্ষণিক আছমাকে কৃত্তিম পায়ের ব্যবস্থা করবেন বলে ঘোষণা দেন। এতে সারা পান তিনি।

মাহবুব আলম প্রিয় বলেন, আছমা দরিদ্র ঘরের সন্তান। তার দিনমজুর বাবা কোন মতেই পারতেন না প্রায় লাখ টাকা দিয়ে একটি কৃত্তিম পা স্থাপন করতে। প্রথমে আমার আইডিতে ফেসবুকের পোস্ট দেখে রূপগঞ্জ প্রেসক্লাব সভাপতি কলামিষ্ট ও গবেষক লায়ন মীর আব্দুল আলীম তার পা স্থাপনের ব্যবস্থা করেন। গত মঙ্গলবার সকালে আছমাকে কৃত্তিম পা স্থাপনের জন্য রাজধানীর ইন্দোলাইট নামক একটি প্রতিষ্ঠানে নিয়ে যান। সেখান থেকে পা কিনে তাৎক্ষণিক পা স্থাপন করে নিজেই প্রশিক্ষণ দেন। শুধু তাই নয়, আনুষঙ্গিক সামগ্রি নগদ অর্থ প্রদান করেন তিনি।

আছমার মা আছিয়া বেগম বলেন, আমি চিরকৃতজ্ঞ। আমার অসহায় মেয়েটিকে হাটার ব্যবস্থা করায় আমি ঋণি হয়েছি।

কলামিষ্ট ও গবেষক লায়ন মীর আব্দুল আলীম বলেন, মানুষ, মানুষেরই জন্য। আমরা সবাই মিলে দরিদ্রদেরকে সাধ্যমত সহায়তা করলে অনেক দুঃখি মানুষের মুখেও হাসি ফুটানো সম্ভব।

মারুফ-শারমিন স্মৃতি সংস্থ্যার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও গ্রেজেটভুক্ত সমাজ সেবক আলহাজ¦ লায়ন মোজাম্মেল হক ভুইয়া বলেন,, সমাজের বিত্তবানরা এগিয়ে এলে কোন দরিদ্রের সন্তানরাই অসহায়ত্ব বোধ করবে না। তাই সকলের উচিত এ ধরনের মানুষের পাশে দাড়ানো।

নিউজবিডি৭১/বিসি/অক্টোবর ৩১, ২০১৮

Comments are closed.