১৯শে ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং মনোনয়ন ঝুঁকিতে আ.লীগের অর্ধশতাধিক এমপি
Mountain View

মনোনয়ন ঝুঁকিতে আ.লীগের অর্ধশতাধিক এমপি

0
image_pdfimage_print

নিউজবিডি৭১ডটকম 
বিশেষ প্রতিনিধি : 

ব্যর্থ, বিতর্কিত, জনবিচ্ছিন্ন এমপিদের এবার মনোনয়ন দেবে না ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ। ওই আসনসমূহে যারা জনপ্রিয় এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে যাঁদের গ্রহণযোগ্যতা ও পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তি রয়েছে এমন প্রার্থীরা মনোনয়ন পাবে।দলের বিজয় নিশ্চিত করতে প্রার্থী পরিবর্তন করবে আওয়ামী লীগ। বিএনপি নির্বাচনে আসবে এটা ধরে নিয়েই প্রার্থী বাছাই করবে। প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনে জয় নিশ্চিত করতেই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ।

আওয়ামীলীগের একাধিক সূত্র এবং বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধির সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দশম সংসদের অর্ধশতাধিক সংসদ সদস্য মনোনয়ন ঝুঁকিতে রয়েছে।

প্রার্থী বাছাইয়ে আওয়ামীলীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজস্ব জরিপ এবং সরকারি বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে ৩০০ আসনের প্রার্থীদের তথ্য সংগ্রহ করছেন। এসব সংস্থার পক্ষ থেকে প্রতিটি আসনেই তিন থেকে আটজন প্রার্থীর তালিকা পাঠানো হচ্ছে। প্রতি তিন মাস পর পর এ তালিকা হালনাগাদ করা হয়। সংস্থাসমূহের প্রতিবেদনে অনেক এমপির বিরুদ্ধে অপকর্ম, জন-অসন্তোষ, দলীয় নেতাকর্মীদের ক্ষোভ, জনবিচ্ছিন্নতাসহ নানা ধরণের নেতিবাচক তথ্য উঠে আসছে। প্রায় অর্ধশতাধিক আসনের সংসদ সদস্য জনপ্রিয়তা হারিয়েছেন বলে জানা গেছে।

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ড এর একাধিক সদস্য জানান, যেখানে ভালো প্রার্থী পাওয়া যাবে এবং যিনি নিশ্চিত বিজয়ী হয়ে আসবেন তাঁকেই মনোনয়ন দেওয়া হবে। জনবিচ্ছিন্ন এমপিদের পরিবর্তন না করলে ওই আসনগুলোই হারাতে হবে। প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ নির্বাচনে যাঁরা জয়লাভ করতে পারবেন, তাঁদেরই মনোনয়ন দেওয়া হবে। যাদের জয়ের সম্ভাবনা রয়েছে এবং সাধারন মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে তাদেরই  মনোনয়ন দেওয়া হবে।’

আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নবঞ্চিত হতে পারেন এমন নেতাদের মধ্যে রয়েছে আওয়ামী লীগের নেতা ফারুক আহমেদ খুনে অভিযুক্ত টাঙ্গাইল-৩ আসনের সংসদ সদস্য আমানুর রহমান খান রানা এবং ইয়াবা চোরাচালানে যুক্ত থাকার অভিযোগে দেশব্যাপী সমালোচিত কক্সবাজার-৪ আসনের আবদুর রহমান বদি। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনে তীব্র দলীয় কোন্দলের কারণে মনোনয়ন নাও হতে পারেন বর্তমান সংসদ সদস্য ফায়জুর রহমান।

চট্টগ্রামের কয়েকটি আসনে প্রার্থী পরিবর্তন হতে পারে। এর মধ্যে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রথমবারের মতো সংসদ সদস্য হওয়া তিন সংসদ সদস্য চট্টগ্রাম-১৪ আসনে নজরুল ইসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম-১৫ আসনে আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামউদ্দিন নদভী, চট্টগ্রাম-১৬ আসনে মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী। দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে দূরত্বের কারণে বাদ পড়তে পারেন চট্টগ্রাম-৪ আসনে দিদারুল আলম, চট্টগ্রাম-১১ আসনে এম আব্দুল লতিফ।

জয় নিশ্চিত করতে এবং সাধারণ ভোটারদের পক্ষে টানতে পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তির প্রার্থীদের মনোনয়ন দিতে মনোনয়ন বঞ্চিত হতে পারেন টাঙ্গাইল-৬ আসনের সংসদ সদস্য খন্দকার আবদুল বাতেন। তার আসনে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমের মনোনয়ন পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

কিশোরগঞ্জ-২ আসনেসংসদ সদস্য সোহরাব উদ্দিন মনোনয়ন নাও পেতে পারেন।তার বদলে সাবেক আইজিপি নূর মোহাম্মদ মনোনয়ন পেতে পারেন।

বয়সের কারণে বাদ পড়তে পারেন বাগেরহাট-৪ আসনে ড. মোজাম্মেল হোসেন, নাটোর-৪ আসনে আবদুল কুদ্দুস, শরীয়তপুর-২ আসনে কর্নেল (অব.) শওকত আলী, নরসিংদী-৫ আসনে রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু।

মনোনয়ন ঝুঁকির তালিকায় আরো যাদের নাম আছে বলে জানা গেছে তারা হলেন- মাগুরা-১ আসনে এ টি এম আবদুল ওহাব, দিনাজপুর-১ আসনে মনোরঞ্জন শীল গোপাল, সিরাজগঞ্জ-৩ আসনে গাজী ম ম আমজাদ হোসেন মিলন, যশোর-২ আসনে মনিরুল ইসলাম, খুলনা-৬ আসনে শেখ মো. নুরুল হক,  বরিশাল-২ আসনে তালুকদার মো. ইউনুস, মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে সুকুমার রঞ্জন ঘোষ, জামালপুর-২ আসনে ফরিদুল হক খান দুলাল, নেত্রকোনা-৩ আসনে ইফতিকার উদ্দিন তালুকদার পিন্টু, নেত্রকোনা-৪ আসনে রেবেকা মোমিন, ঠাকুরগাঁও-২ আসনে দবিরুল ইসলাম, নড়াইল-১ কবিরুল হক মুক্তি, ঢাকা-৫ আসনে হাবিবুর রহমান মোল্লা, নওগাঁ-৫ আসনে আবদুল মালেক, পিরোজপুর-১ আসনে এ কে এম এ আউয়াল, মেহেরপুর-১ ফরহাদ হোসেন, নীলফামারী-৩ আসনে গোলাম মোস্তফা।

জানা গেছে, বিতর্কিত কয়েকজন মন্ত্রীও আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নবঞ্চিত হতে পারেন।

সূত্রগুলো জানায়, রাজশাহী, সিরাজগঞ্জ, ময়মনসিংহ, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, নীলফামারী, রংপুর, খুলনা,যশোর, চাঁদপুর এবং ঢাকার একাধিক আসনেও প্রার্থী পরিবর্তন করতে পারে আওয়ামী লীগ।

নিউজবিডি৭১/বিসিপি/৬অক্টোবর, ২০১৮

Share.

Comments are closed.