১৬ই আগস্ট, ২০১৮ ইং ‘সেন্ট মার্টিনে রাতে কোনো পর্যটন থাকতে পারবে না’
Mountain View

‘সেন্ট মার্টিনে রাতে কোনো পর্যটন থাকতে পারবে না’

0
image_pdfimage_print

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : পরিবেশ ও বন মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেছেন, সেন্ট মার্টিনে রাতে কোনো পর্যটন থাকতে পারবে না। পর্যটকরা সেখানে দিনে যাবে আবার সন্ধ্যার আগেই দ্বীপটি ছেড়ে আসতে হবে। এর পাশাপাশি দ্বীপটির আশপাশে চলাচল করা ছোট বড় জাহাজকেও তেলদূষণ করতে দেয়া হবে না। সেন্টমার্টিনে কোনো ধরণের পলিথিন বা প্লাস্টিক ফেলাও যাবে না। এব্যাপারে সরকার খুব শিগগিরই কঠোর পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে ।

বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার ফার্মগেটস্থ কৃষিবিদ ইন্সস্টিটিউট মিলনায়তনে এক সেমিনারে তিনি এসব কথা বলেন। কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটের আয়োজনে এ সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন ইনস্টিটিউটের সভাপতি কৃষিবিদ এ এম এম সালেহ। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. সুলতান আহমেদ। মুল প্রবন্ধ পাঠ করেন বায়ুমান বিশেষজ্ঞ মোঃ জিয়াউল হক।

সেমিনারে মন্ত্রী আরো বলেন, প্লাস্টিক পরিবেশ দূষণের পাশাপাশি জলাবদ্ধতা সৃষ্টি করে। নগর গ্রাম সবস্থানেই প্লাস্টিক দূষণ ভয়াবহ পরিবেশ দূষণ করছে। এটা এখন পরিবেশ রক্ষায় নতুন বাধা হিসাবে দেখা দিয়েছে। এর কারণ হচ্ছে পলিথিন এবং প্লাস্টিক ব্যাগ বা সামগ্রী খুবই সহজলভ্য।

তিনি বলেন, কোনোভাবেই পলিথিন ব্যাগ সহজলভ্য হওয়া ঠিক না। তিনি জানান, পলিথিন ও প্লাস্টিক সামগ্রীর দাম বাড়াতে হবে। দাম বেশি হলে তা ব্যবহারে সকলেই নিরুৎসাহী হবে। শুধু আইন ব্যবহার করে প্লাস্টিক উৎপাদন বন্ধ করা সম্ভব না। তিনি বলেন, জনসচেতনতা পারে প্লাস্টিকের যথেচ্ছ ব্যবহারের বিরুদ্দে জনমত গড়ে তুলতে। তিনি বলেন, প্লাস্টিক ব্যবহার কমাতে না পারলে এর বিরূপ প্রতিক্রিযা পরিবেশের ওপর পড়তে বাধ্য। তবে তিনি জানান, খুব শিগগির পাটের থেকে উৎপাদিত পলি ব্যাগ সহজলভ্য করতে সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছে। আর পরিবেশ অধিদপ্তরও একাজে সহায়তা দবে। কেননা সবাই জানে নদী, নালা, খাল, বিল এমনকি বিশাল সাগরে কিভাবে পলিথিন দূষণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।

ড. সুলতান আহমেদ বলেন, পরিবেশ অধিদপ্তর পলিথিন দূষণের ব্যাপারে যথেষ্ট সচেতন এখন। পরিবেশ অধিদপ্তর পলিথিন ও প্লাস্টিক দুষণ থেকে কিভাবে পরিবেশকে রক্ষা করা যায় সেব্যাপারে বিভিন্ন পাইলট প্রকল্প নিয়েছে। তিনি বলেন, প্লাস্টিক যেখানে সেখানে ফেলে দেয়ার বিরুদ্ধে গণমাধ্যমকেই সচেতন হতে হবে। কারণ পরিবেশ দূষণ থেকে রক্ষা করতে পারলে কোনো উন্নয়ন কাজে আসবে না।

নিউজবিডি৭১/আর/ ১২ জুন , ২০১৮

Share.

Comments are closed.