১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং কেন বাংলাদেশে সিজার বেশি হয়
Mountain View

কেন বাংলাদেশে সিজার বেশি হয়

0
image_pdfimage_print

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : সিজারিয়ান সেকশনের মাধ্যমে সন্তান জন্মদানের হার বাংলাদেশে ক্রমাগতভাবে বাড়ছে। ২০০৪ সালে এই হার ছিল বছরে মোট ডেলিভারির ৫ শতাংশ, ২০০৭ সালে ৯ শতাংশ, ২০১১ তে ১৭ শতাংশ এবং ২০১৪ সালে ২৩ শতাংশ। সন্দেহ নেই সিজারিয়ান সেকশনের এই উচ্চহার পৃথিবীর অন্যান্য দেশের চাইতে বেশি।

অন্যান্য দেশের সঙ্গে তুলনা করে আমাদের দেশের সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে বুদ্ধিজীবীরাও সিজারিয়ান সেকশনের উচ্চহারে নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং এর জন্য গণহারে চিকিৎসকদের দায়ী করে থাকেন। এমনকি অনেক চিকিৎসকও মনে করেন গাইনোকলজিস্টদের অতিরিক্ত অর্থলিপ্সা এই সিজারিয়ান সেকশনের প্রবণতার জন্য দায়ী। র্টালের।ফেসবুকে একটা পোস্ট ভাইরাল হতে দেখেছি, কোনো এক অনলাইন নিউজপোর্টালের ওখানে দাবি করা হয়েছে, বাংলাদেশে সিজার করা হয় দুটি কারণে। টাকার জন্য, গাইনির ডাক্তারদের শেখার জন্য। এই নিউজ বাংলাদেশের অনেক সচেতন লোকও বিশ্বাস করেন। তাই আসলে বাংলাদেশে সিজারিয়ান সেকশন বেশি কেনো তা বলার প্রয়োজন অনুভব করছি।

বাংলাদেশে সিজার বেশি হওয়ার অনেক কারণ রয়েছে: প্রথমত, গর্ভকালীন মায়ের যে পরিমাণ যত্ন নেয়া দরকার তা নেয়া হয় না। এর ফলে প্রসবের জন্য ডাক্তারের কাছে আসে হাই রিস্ক অবস্থায়। সিজার করানো ছাড়া উপায় থাকে না। দ্বিতীয়ত, আমাদের উচ্চমধ্যবিত্ত এবং কর্মজীবী মায়েরা ডেলিভারির পেইন সহ্য করতে রাজি না। ব্যথাবিহীন নরমাল ডেলিভারির জন্য এপিডুরাল দেয়ার ব্যবস্থা বাংলাদেশে অ্যাভেইলেবল না। আমার পরিচিত ডাক্তার দম্পতির কয়েকজন কোনো রকম ইন্ডিকেশন ছাড়াই সিজার করানোর জন্য ডাক্তারকে অনুরোধ করেছেন। তৃতীয়ত, অধিকাংশ পরিবার বিন্দুমাত্র ঝুঁকি নিতে রাজি না। নর্মাল ডেলিভারিতে নবজাতক এবং মায়ের মৃত্যুঝুঁকি একটু বেশি। চতুর্থত, ক্লিনিক ব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য। দালাল ডাইরেক্ট রোগী এনে ক্লিনিকে রাখে। ওটি টেবিলে নেয়ার আগে ক্লিনিকের ম্যানেজার সার্জনকে ফোন দেয়। পঞ্চমত, গাইনোকলজিস্টের একটা অংশের ব্যস্ততা এবং টাকার লোভ। নর্মাল ডেলিভারির জন্য যে সময় দরকার, সে সময় রোগীকে দেয়া উনাদের পক্ষে সম্ভব হয় না এবং সম্ভব হলেও রোগীর পার্টি সেই সময়ের টাকা দিতে রাজি হয় না। ষষ্ঠত, জাতিগতভাবে আমাদের এই অঞ্চলের মায়েদের short stature narrow pelvis বেশি থাকে।তাই অবস্ট্রাক্টেড লেবারের হার এই অঞ্চলে বেশি। এ জন্য তুলনামূলকভাবে বেশি সিজার দরকার হয়।

নিউজবিডি৭১/আ/৮ এপ্রিল, ২০১৮

Share.

Comments are closed.