১০ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং কুস্তিগীর রক সম্পর্কে কতটুকু জানেন আপনি?
Mountain View

কুস্তিগীর রক সম্পর্কে কতটুকু জানেন আপনি?

0
image_pdfimage_print

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : পেশাদার কুস্তিগীর হিসেবে এক সময় রেসলিংয়ের মঞ্চ কাঁপিয়েছেন। ১৯৯৬ সাল থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত ‘দ্য রক’ নামে রেসলিংয়ে পুরো বিশ্ব শাসন করেছেন। মূলত রেসলিং খেলার মাধ্যমে গোটা পৃথিবীতে তাঁর জনপ্রিয়তা ছড়িয়ে যায়। খেলার পাশাপাশি ১৯৯৯ সাল থেকে অভিনয় শুরু করেন। প্রথম প্রধান চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পান ২০০২ সালে মুক্তি পাওয়া ‘দ্য স্করপিয়ন কিং’ ছবিতে। এরপর থেকে অভিনয়ে থিতু হন। জানা যাক এই পেশাদার খেলোয়াড় ও অভিনেতার জানা অজানা কিছু তথ্য-

» ‘দ্য রক’ হিসেবে পরিচিতি লাভ করলেও তাঁর প্রকৃত নাম ‘ডোয়াইন জনসন রক’। এছাড়া তিনি রকি মাইভিয়া নামেও পরিচিত। রকি মাইভিয়া নামেই প্রথম রেসলিং-এ প্রবেশ করেন।

» তাঁর স্কুল জীবন শুরু হয় নিউজিল্যান্ডে। এরপর ‘ইউনিভার্সিটি অফ মায়ামি’ থেকে অপরাধ বিজ্ঞান ও শরীরতত্ত্ব বিষয়ে স্নাতক করেন।

» রকের পরিবারের প্রায় সবাই রেসলিংয়ের সংগে জড়িত। তাঁর নানা, বাবা, চাচা এমনকি তাঁর চাচাতো ভাইয়েরাও রেসলিং্যের সংগে জড়িত।

» তাঁর শেকড় রেসলিং হলেও একজন ফুটবল খেলোয়াড় হওয়ার স্বপ্ন দেখতেন রক। ১৯৯১ সালে ‘মায়ামি হারিকেন্স’ ফুটবল দলের হয়ে জাতীয় পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন হন। এরপর কানাডায় ‘ক্যালগারি স্ট্যাপেডার্স’ ক্লাবের হয়ে বেশকিছু সময় ফুটবল খেলেন। ফুটবল মাঠে তিনি রক্ষণভাগে খেলতেন।

» প্রথম দিকে রকি মাইভিয়া নামে খুব ভদ্র চরিত্রে রেসলিং খেলা শুরু করেন। এরপর ‘দ্য রক’ নামে ভিলেন চরিত্রে খেলা শুরু করলে বেশ সফলতা পান। ক্যারিয়ারে ১৭ টি চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেন।

» খুব কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে বেড়ে উঠেছিলেন রক। আর্থিক সংকটে পড়ে তাঁর পরিবারের লোকজন প্রায়ই মারামারিতে জড়িয়ে পড়তেন। ‘হলিউড রিপোর্টার’ এর খবর অনুযায়ী, ওয়াইকিকি-তে একবার রক দোকানে চুরির দায়ে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন।

» ‘বিয়ন্ড দ্য ম্যাট’ নামে ১৯৯৯ সালে একটি তথ্যচিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে চলচ্চিত্রে প্রবেশ করেন।

» অভিনয়ের পাশাপাশি ছবিও প্রযোজনা করেন রক। ‘সেভেন বাকস’ নামে একটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান রয়েছে তাঁর। চরম আর্থিক সংকটের সময় মানিব্যাগে গুনে গুনে ৭ টাকা খুঁজে পান। সেই থেকেই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের নাম ‘সেভেন বাকস’। মুক্তির অপেক্ষায় থাকা তাঁর অভিনীত ছবি ‘স্কাইস্ক্র্যাপার’ তাঁর প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের ব্যানারে নির্মিত হয়েছে।

» অভিনয়ের পাশাপাশি গান গাওয়া এবং গিটার বাজানোতে বেশ দক্ষ তিনি।

Ø ২০১৬ সালে তিনি ‘ওয়ার্ল্ড স্যক্সিয়েস্ট ম্যান’ নির্বাচিত হন।

» ২০১৬ সালে এক টুইট বার্তায় আমেরিকার প্রেসিডেন্ট হওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন রক। এছাড়া ২০১২ সালেও তিনি প্রেসিডেন্ট হয়ে মানুষের জন্য কিছু করার কথা বলেন।

» মার্কিন কল্পবিজ্ঞান ভিত্তিক টেলিভিশন সিরিজ ‘স্টার ট্রেক ভয়েজার’-এ একজন রেসলারের ভুমিকায় অভিনয় করেন রক।

» ক্যালিফোর্নিয়ায় ‘হিডেন হিলস হোম’ নামে ৯১২০ স্কয়ার ফিটের একটি বাড়িতে বসবাস করেন রক, যার মূল্য ৫ মিলিয়ন ডলার। এছাড়া মায়ামি ও ভার্জিনিয়াতে তাঁর বিলাসবহুল বাড়িসহ খামার বাড়ি রয়েছে।

» ২০১৭ সাল পর্যন্ত তাঁর সম্পত্তির মূল্য ছিল ২২০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

» হাতঘড়ি পরতে বেশ পছন্দ করেন রক। তাঁর পছন্দের ব্র্যান্ড পেনরাই লুমিনর এবং রোল্যাক্স। এছাড়া তাঁর রয়েছে গাড়ি প্রীতি। ফেরারি, ফোর্ড, রোলস রয়েস, ক্যাডিলাক, তাঁর পছন্দের ব্র্যান্ড।

» ১৯৯৬ সালে বিয়ে করেন রক। তাঁর স্ত্রীর নাম ড্যানি গার্সিয়া। ২০০৮ সালে তাঁদের ছাড়াছাড়ি হয়। বর্তমান বান্ধবী লরেন হাসিয়ান। সিমন অ্যালেক্সজান্দ্রা ও জেসমিন জনসন নামে তাঁর দুটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

» ‘ডোয়ায়েন জনসন রক ফাউন্ডেশন’ নামে তাঁর একটি দাতব্য সংস্থা রয়েছে যেটি শিশুদের নিয়ে কাজ করে।

নিউজবিডি৭১/আর/২২ মার্চ ২০১৮

Share.

Comments are closed.