১৪ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং একুশের প্রথম প্রহরে সারাদেশে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা
Mountain View

একুশের প্রথম প্রহরে সারাদেশে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা

0
image_pdfimage_print

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের মতো একুশের প্রথম প্রহরে বরিশাল, রাজশাহী, দিনাজপুর, খুলনা, কুষ্টিয়া, নারায়ণগঞ্জ নড়াইল,চুয়াডাঙ্গা,নরসিংদী, ভোলাসহ সারাদেশের শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়েছে।

বরিশালে মঙ্গলবার রাত ১২টার পর একুশের প্রথম প্রহরে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান সংসদ সদস্য আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, তালুকদার মো. ইউনুস, বরিশাল সিটি মেয়র আহসান হাবিব কামাল।

এরপর পর্যায়ক্রমে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, বিভাগীয় কমিশনার, ডিআইজি, পুলিশ কমিশনার, জেলা প্রশাসক, জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগসহ অন্যান্য রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারাসহ সব শ্রেণি-পেশার মানুষ শহিদ বেদিতে ফুল দিয়ে ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

রাজশাহী মহানগরীর শহিদ মিনারগুলোতে একুশের প্রথম প্রহরে ঢল নামে জনতার। রাত ১২টা ১ মিনিটে রাজশাহী কলজে শহিদ মিনারে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, খালেদ মাহমুদ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক ছায়দেুর রহমান, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন।

এখানে মহানগর বিএনপির পক্ষে আলাদাভাবে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন দলটির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু ও মহানগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল।

এদিকে রাজশাহীর ঐতিহাসিক ভুবন মোহন পার্ক শহিদ মিনারে শহিদদের স্মরণে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ওর্য়ার্কাস পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা।

দিনাজপুর কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারেও প্রথম প্রহরেই পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। এরপর পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন জাতীয় সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম।

পরে দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মীর খায়রুল আলম, পুলিশ সুপার হামিদুল আলম শহিদ বেদিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন।

খুলনায় ২১ ফেব্রুয়ারীর প্রথম প্রহরে খুলনা শহীদ হাদিস পার্কে প্রথম পুস্পমাল্য অর্পন করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, তার পর খুলনা বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া, পুলিশ কমিশনার হুমায়ুন কবীর, ডিআইজি দিদার আহমেদ, জেলা প্রশাসক আমিন উল আহসান, পুলিশ সুপার নিজাম উদ্দিন মোল্লা পুস্প মাল্য দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।

এরপর পরই খুলনা প্রেস ক্লাব, খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়ন, বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন, সামাজিক সংগঠন, বিভিন্ন মহল্লা ক্লাবসহ সর্বস্তরের সব বয়সের মানুষের ঢল নামে। মধ্যরাতে শহীদ হাদিস পার্কে মানুষের কোলাহলে মুখরিত হয়ে উঠে।

মহানগর সভাপতি তালুকদার আব্দুল খালেক সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মিজানুর রহমান মিজানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগি সংগঠন ,মহানগর সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু ও সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র মনিরুজ্জামান মনির নেতৃত্বে বিএনপি ও তার সহযোগি সংগঠন পুস্পমাল্য অর্পণ করেন।
তার আগে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের পক্ষে সিটি মেয়র মনিরুজ্জামান মনিও পুস্পমাল্য অর্পণ করেন।

এছাড়াও ব্যক্তি গত ভাবে সব বয়সের নারী পুরুষ মধ্য রাতের পথযাত্রা শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ হয়।

কুষ্টিয়ায় মহান একুশে ফেব্রুয়ারী আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হচ্ছে। কঠোর নিরাপত্ত্বা ব্যবস্থার মধ্যদিয়ে একুশের প্রথম প্রহরে রাত ১২টা ১ মিনিটে কুষ্টিয়ার কালেক্টরেট চত্ত্বরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান জেলা প্রশাসক মো. জহির রায়হান, পুলিশ সুপার এসএম মেহেদী হাসান।

এরপর জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাব (কেপিসি), সাংবাদিক ইউনিয়ন কুষ্টিয়া, জেলা আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন, স্কুল কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং সাধারণ মানুষ ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান।

নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়ায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে একুশে ফেব্রুয়ারিতে শহীদ মিনারে ফুলের শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন প্রশাসন, বিভিন্ন সামাজিক রাজনৈতিক সংগঠনসহ সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ।

বুধবার রাত ১২টা ১ মিনিটের পর থেকেই শ্রদ্ধা নিবেদন শুরু হয়। প্রথমে জেলা প্রশাসন, সংসদ সদস্যসহ বিভিন্ন সরকারি প্রশাসনের কর্মকর্তা কর্মচারীদের শ্রদ্ধা নিবেদনের পর সর্বস্তরের মানুষের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয় শহীদ মিনার। পরে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ ভাষা শহীদদের স্মরণে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

জেলা প্রশাসনের পক্ষে সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য হুসনে আরা বাবলী, জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়া রাব্বি মিয়া, সদর উপজেলা ইউএনও তাসনিম জেবিন বিনতে শেখ, পিপি ওয়াজেদ আলী খোকন, পুলিশ প্রশাসনের পক্ষে পুলিশ সুপার মঈনুল হক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান, মতিয়ার রহমান, সরফুদ্দিন, সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামরুল ইসলাম, ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কামালউদ্দিন, সিভিল সার্জন ডা. মোঃ এহেসানুল হক, জেলা পরিষদের প্রধান প্রশাসনিক কর্মকর্তা রাশেদুজ্জামান, জেলা আওয়ামীলীগের পক্ষে সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত শহীদ মোঃ বাদল, জেলা আওয়ামীলীগ নেতা জাহাঙ্গীর, ইকবাল পারভেজ, বিরু, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের পক্ষে সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান দিপু, মাহমুদা মালা, অয়ন ওসমানের পক্ষে নেতাকর্মীরা, নারায়ণগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ, মহানগর ছাত্রলীগ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তানরা, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স, নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ইউনিয়নসহ বিভিন্ন সংগঠন ভাষা শহীদদের স্মরণে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

নড়াইলে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে রাত ১২টা এক মিনিটে প্রথমে নিবেদন করেন জেলা প্রশাসক মোঃ এমদাদুল হক চৌধুরী। এরপর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, পুলিশ প্রশাসন, জেলা পরিষদ ও জেলা আওয়ামী লীগ শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনের পর শুরু হয় শ্রদ্ধাঞ্জলি দেওয়ার প্রতিযোগিতা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হাতে গোনা কয়েকটি সরকারী প্রতিষ্ঠানের শ্রদ্ধাঞ্জলি দেওয়া শেষ হলেই শুরু হয়ে যায় আগে শ্রদ্ধাঞ্জলি দেওয়ার প্রবণতা। এসময় অনেকেই জুতা নিয়েই শহীদ মিনারের বেদীতে উঠে গিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবদেন করেন। এসময় মাইকের ঘোষক আহবান জানালেও তা কেউ শোনেনি। যার যার ইচ্ছামতো শ্রদ্ধাঞ্জলি দিয়েছেন।

চুয়াডাঙ্গায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ভাষা শহীদদের স্মরণে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানিয়েছেন বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ। মাতৃভাষা দিবসের প্রথম প্রহরে চুয়াডাঙ্গা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এ শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়।

মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২ টা ১ মিনিটে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।

প্রথম প্রহরে জাতীয় সংসদের হুইপ ও চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সংসদ সদস্য সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন, জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ, পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমানসহ সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

নরসিংদী জেলায় যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও শহীদ দিবস পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার (২১ ফেব্রুয়ারি) প্রথম প্রহরে রাত ১২টা ১ মিনিটে নরসিংদী স্টেডিয়াম-সংলগ্ন চত্বরের শহীদ মিনার জেলা প্রশাসক ড. সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস, পুলিশ সুপার আমেনা বেগম, সিভিল সার্জন ডা. সুলতানা রাজিয়া, চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ সভাপতি আবদুল্লাহ আল মামুন, নরসিংদী প্রেসক্লাব সভাপতি মোরশেদ শাহরিয়ার ও সাধারণ সম্পাদক শফিকুল মোহাম্মদ মানিক, জেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, জেলা বিএনপি, ন্যাপ, কমিউনিস্ট পার্টি, ছাত্রদল, সুজন(সুশাসনের জন্য নাগরিক), পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি, জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি, জেলা কারা কর্তৃপক্ষ, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, আব্দুল কাদির মোল্লা সিটি কলেজ, নরসিংদী মডেল কলেজ, স্কলাস্টিকা মডেল কলেজ, নরসিংদী প্রেসিডেন্সি কলেজ, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন স্কুল-কলেজের শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীসহ বিভিন্ন সংগঠন শহীদদের প্রতি ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

ভোলায় ভাষা শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানানোর মধ্য দিয়ে পালিত হচ্ছে অমর একুশে। ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করতে একুশের প্রথম প্রহওে ভোলা সরকারী বালক বিদ্যালয় মাঠের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সর্বস্তরের মানুষের ঢল নামে।

রাত ১২টা এক মিনিটে একুশের প্রথম প্রহরে ভোলা জেলা প্রশাসক মোঃ সেলিম উদ্দিনের শহীদ বেদীতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের মাধ্যদিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন শুরু হয়। এরপর নিয়ম মোতাবেক পুলিশ সুপারের শ্রদ্ধা জানানো শেষে প্রবেশ করে জেলা আওয়ামী লীগ।

এরপর একে একে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে জেলা ও দায়েরা জজ, ভোলা জেলা পরিষদ, উপজেলা পরিষদ, ভোলা পৌরসভা, ভোলা প্রেসক্লাব, ভোলা সরকারি কলেজ, সরকারী বালক বিদ্যালয়, ফজিলতুন নেছা মহিলা কলেজ, জেলা ছাত্রলীগ, গণপূর্ত বিভাগ, পানি উন্নয়ন বোর্ড, সাস্থ্য বিভাগ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, জেলা বিএনপি, আইনজীবি সমিতি, লেডিস ক্লাব, কোস্ট ট্রাস্ট, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদসহ ভোলা বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজিবী সংগঠনগুলো।

নিউজবিডি৭১/আর/২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

Share.

Comments are closed.