১৮ই জানুয়ারি, ২০১৮ ইং উত্তরায় জুয়ার আসর , পুলিশের নীরব ভূমিকা
Mountain View

উত্তরায় জুয়ার আসর , পুলিশের নীরব ভূমিকা

0

নিউজবিডি৭১ডটকম
আমিনুল ইসলামঃ রাজধানীর উত্তরার দক্ষিণখান ফরিদ মার্কেট কাচাঁ বাজার । দোকানদার মোবাইলের কল রিসিভ করছেন। আবার কখনও বলছেন, ওভারে দুই হাজার, কখনও বলছনে উইকেটে তিন হাজার।

বুঝতে বাকী রইল না, ক্রিকেটম্যাচ ঘিরে চলছে জুয়ার তুমুল আয়োজন । ক্রিকেট ম্যাচ শুরু হলে প্রতি ওভার, প্রতি বলে শুরু হয় জুয়ার আসর। স্থান, কাল এবং পাত্র ভেদে বল প্রতি ২০হাজার টাকার বাজিও ধরা হয়। আবার কোথাও এক লাখ টাকাও বাজি ধরা হয়। ক্রিকেট জনপ্রিয় খেলা, এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে জুয়ারী সিন্ডিকেট নিয়মিত ভাবে চালিয়ে যাচ্ছে এ জুয়ার আসর। ফরিদমার্কেটে জুয়ার আসর রমরমা। ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে সম্প্রতি জুয়ার আসর নিয়মিতভাবে পরিচালনার জন্য পুলিশ প্রশাসনের সাথে মৌখিক চুক্তিতে সপ্তাহে চার হাজার টাকা দিয়ে জুয়া চালিয়ে যাচ্ছে জুয়ারী সিন্ডিকেট।

জুয়ারী সিন্ডিকেটের মূল হোতা মো: সেলিম। সে তার নিজস্ব বাহিনি দিয়ে জুয়ার আসর চালিয়ে থাকে । তার রয়েছে একাধিক আসর ।

জানা যায়, থানায় সেলিম মৌখিক চুক্তির মাধ্যমে সপ্তাহে চার হাজার টাকার বিনিময়ে এধরনের জুয়া চালানোর অনুমতি নিয়ে থাকে এমনটি জানা যায় ।

জুয়া খেলার সময় ৩০-৪০জন জুয়ারী একত্রে টেলিভিশনের পর্দায় খেলার ওভার প্রতি রান, উইকেট ও পছন্দের দল জিতবে সে দলকে কন্দ্রে করে বিভিন্ন অংকের টাকা জুয়া ধরা হয়। আর জুয়াকে পুজি করে এক ধরনের জুয়ারী সিন্ডিকেট যুব সমাজে অপরাধ বাড়িয়ে তোলার কজে লিপ্ত হচ্ছে।

জুয়ারী সিন্ডিকেট থানার যোগ সাজসে চালিয়ে যাচ্ছে জুয়ার আসর। সূত্রে জানা যায়, জুয়া নিয়মিত পরিচালনার জন্য থানায় সপ্তাহে দেওয়া হয় মোটা অংকরে টাকা।

সেই সাথে স্থানিয় সাবেক ইউপি সদস্য একরাম মোল্লা তার নিজস্ব পকেট ভারি করার জন্য মৌখিক ভাবে তার কাচাঁবাজারের ভেতরের এক অংশ জুয়া খেলার জন্য বরাদ্দ দিয়েছেন বলে জানান জুয়ারী সদস্যরা । আর সে জন্য তাকে দেওয়া হয় দৈনিক দুই হাজার টাকা ।

ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে নিয়মিত ভাবে প্রকাশ্যে জুয়ার আসর দিনদিন অপরাধ প্রবনাতাকে বাড়িয়ে তুলছে । মন্তব্য করে কতিপয় ব্যক্তি বলেন, জুয়া সমাজের একটি অবক্ষয় । সমাজের যুব সমাজ জুয়ায় লিপ্ত হলে সমাজে অপরাধ দিনকেদিন বেড়ে যাবে আর জুয়ার টাকা জোগাড় করার জন্য তারা নানান অপরাধের সাথে জড়িত হয়ে পড়বে ।

ফরিদ র্মাকেটে জুয়ার আসর যেনো নিয়মিত বাজারের একটি অংশ হয়ে দাড়িয়েছে। দিন দুপুরে চলতে দেখা যায় এ জুয়ার আসর । ফরিদ র্মাকেটে কাচাঁ বাজারে আসা ক্রেতাদের অনেকে অভিযোগ করে বলেন, বাজার এখন ভয়ের ব্যপার।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন নিউজবিডি৭১ কে বলেন, এখানে যে কোন সময় মারামারি ঘটতে পারে । ছেলেদের বাজারে পাঠাতে ভয় করে, কারন জুয়ায় লিপ্ত হয়ে যাবে। আবার অনেকে বাজার করতে এসে লিপ্ত হয় জুয়ার আসরে।

বিভিন্ন সময় প্রশাসনকে অবহতি করা হলওে তারা কোন ব্যবস্থা নেইনি বলে জানান এলাকার স্থানীয় ব্যক্তিরা।

এব্যপারে দক্ষিণখান থানার ওসি অপারেশন এর সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি নিউজবিডি৭১ কে বলেন, ব্যবস্থা নিচ্ছি। কিন্তু সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় চিত্র ভিন্ন । র্পব-২

নিউজবিডি৭১/আর/১৮  ডিসেম্বর , ২০১৭

image_print
Share.

Comments are closed.