১৬ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং বগুড়ার ৭টি আসনে জনপ্রিয়তায় বিএনপির প্রার্থীরা
Mountain View

বগুড়ার ৭টি আসনে জনপ্রিয়তায় বিএনপির প্রার্থীরা

0
image_pdfimage_print

নিউজবিডি৭১ডটকম
এম নজরুল ইসলাম, বগুড়া : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে চলছে সর্বত্র আলোচনা। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের জন্মভূমি বগুড়া জেলার ৭টি আসনেই জনপ্রিয়তা ও কর্মীপ্রিয়তায় এগিয়ে রয়েছেন সংগঠনের প্রার্থীরা। বগুড়া-৬ (সদর) আসনে বিএনপি চেয়ারপাসরন বেগম খালেদা জিয়া ও তার পুত্রবধু ডা. জোবাইদা রহমান বগুড়া-৭ (গাবতলী ও শাজাহানপুর) আসনে রয়েছেন আলোচনার শীর্ষে।

তবে আইনগত সমস্যা না থাকলে বগুড়া-৭ আসনে প্রার্থী হবেন দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান। সরেজমিনে নির্বাচনী এলাকাগুলো ঘুরে জানা গেছে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই বইছে নির্বাচনী হাওয়া। এ নির্বাচনে কে পাচ্ছেন দলীয় মনোনয়ন, এনিয়ে সর্বস্তরেই চলছে আলোচনার ঝড়।

মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ইতিমধ্যেই নির্বাচনী মাঠে নেমে পড়েছেন। এছাড়াও জনপ্রিয়তা ও কর্মীপ্রিয় নেতারা সভা-সমাবেশ, উঠান বৈঠক, পথসভা, ফেস্টুন-পোষ্টার, দলীয় কর্মসূচীসহ নেতাকর্মীদের দু:সময়ে পাশে থেকে দীর্ঘদিন ধরেই নির্বাচনী এলাকা চষে বেড়াচ্ছেন এবং নিজেদের প্রার্থীতার কথা জনগণের কাছে বিভিন্নভাবে তুলে ধরে এলাকার উন্নয়নে নানান প্রতিশ্রুতিও দিচ্ছেন।

বিএনপির ঘাটি হিসেবে পরিচিত বগুড়ার ৭টি আসনের মধ্যে জনপ্রিয়তা ও কর্মীপ্রিয় প্রার্থীদের নিয়ে ব্যাপক আলোচনায় মেতেছেন ভোটারররা। বিএনপির হাইকমান্ড সঠিক পর্যালোচনায় ও তৃনমূল প্রিয় সক্রিয় জনবান্ধব নেতাদের মনোনয়ন দিলে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়ার ৭টি আসনেই বিএনপির প্রার্থীরাই নির্বাচিত হবেন বলে মন্তব্যের ঝড় উঠেছে নির্বাচনী এলাকাগুলোতে।

বগুড়া-৬ (সদর) আসনে বেগম খালেদা জিয়া ও বগুড়া-৭ (গাবতলী ও শাজাহানপুর) আসনে ডা. জোবাইদা রহমানকে রেখে অন্য ৫টি আসনে সর্বত্রে আলোচনা, জনপ্রিয়তা ও কর্মীপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন- বগুড়া-১ ( সারিয়াকান্দী-সোনাতলা) আসনে বিএনপির সাবেক সাংসদ কাজী রফিকুল ইসলাম রফিক ও বগুড়া জেলা বিএনপির শিশু বিষয়ক সম্পাদক মোশাররফ হোসেন চৌধুরী।

বগুড়া-২ (শিবগঞ্জ) আসনে বগুড়া জেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম.আর ইসলাম স্বাধীন ও সাবেক সাংসদ এ্যাড একেএম হাফিজুর রহমান। বগুড়া-৩ (আদমদীঘি ও দুপচাঁচিয়া) আসনে বগুড়া জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি ফজলুল বারী তালুকদার বেলাল ও সাবেক সাংসদ আব্দুল মোমিন তালুকদার খোকা। বগুড়া-৪ (কাহালু ও নন্দীগ্রাম) আসনে সর্বত্রে আলোচনা, জনপ্রিয়তা ও কর্মীপ্রিয়তায় রয়েছেন- বগুড়া জেলা বিএনপির সহ সভাপতি ও নন্দীগ্রাম উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এ্যাডভোকেট রাফী পান্না। বগুড়া- ৫ (ধুনট ও শেরপুর) আসনে বগুড়া জেলা বিএনপির উপদেষ্টা ও শেরপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি জানে আলম খোকা।

বিএনপির তৃণমুল নেতাকর্মীদের অভিমত, উল্লেখিত প্রার্থীরা সুখে-দুখে সবসময় তাদের পাশে ছিলো। রাজনৈতিক মামলায় দিশেহারা হয়ে পড়েছিল নেতাকর্মী। সেই দুঃসময়েও এই নেতারা আমাদের পাশেই ছিলেন, এবং তারা বিএনপির ইমেজ ধরে রেখেছেন। আমাদের বিশ্বাস, এসকল নেতাকেই মূল্যায়ন করবে বিএনপির হাইকমান্ড।

গ্রামগঞ্চসহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, দোকানপাট, হোটেল ও রেস্তারায় ব্যাপক গনসংযোগ ও বিএনপির সদস্য সংগ্রহ অভিযানেও নিরলসভাবে কাজ করছেন এই নেতারা।

এদিকে, আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন চাইবেন বলে নাম শোনা যাচ্ছে, বগুড়া-১ আসনে সোনাতলা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আহসানুল তৈয়ব জাকির, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা শোকরানা। বগুড়া-২ আসনে জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যক্ষ মীর শাহে আলম। বগুড়া-৩ আসনে হামিদুল হক চৌধুরী হিরু ও এ্যাডভোকেট শেখ মোখলেছুর রহমান। বগুড়া-৪ আসনে বিএনপির সাবেক সাংসদ মোস্তফা আলী মুকুল, ডা: জিয়াউল হক মোল্লা, জেলা বিএনপির ধর্মীয় সম্পাদক মাওলানা ফজলে রাব্বী তোহা, এ্যাডভোকেট গোলাম আকতার জাকির ও ব্যবসায়ী আলহাজ্ব মোশারফ হোসেন। বগুড়া-৫ আসনে শফিউজ্জামান খোকন, ব্যারিস্টার আনোয়ারুল ইসলাম শাহীন, কেএম মাহবুবুর রহমান হারেজ ও সাবেক সাংসদ জিএম সিরাজ। বগুড়া-৬ আসনে বেগম খালেদা জিয়া প্রার্থী না হলে, বগুড়া জেলা বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম। বগুড়া-৭ আসনে তারেক রহমান ও ডা. জোবাইদা রহমান প্রার্থী না হলে, সাবেক সাংসদ হেলালুজ্জামান তালুকদার লালু মনোনয়ন চাইবেন বলে শোনা যাচ্ছে।

নিউজবিডি৭১/আর/৮ ডিসেম্বর , ২০১৭

Share.

Comments are closed.