২১শে এপ্রিল, ২০১৮ ইং মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আমৃত্যু কারাদণ্ড সাঈদী
Mountain View

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আমৃত্যু কারাদণ্ড সাঈদী

0
image_pdfimage_print

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে আমৃত্যু কারাদণ্ড পাওয়া জামায়াতের নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মৃত্যুদণ্ড চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের করা রিভিউ আবেদন এবং খালাস চেয়ে করা সাঈদীর রিভিউ আবেদন খারিজ করেছেন আপিল বিভাগ।

সোমবার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপীল বিভাগের পাঁচ সদস্যের বেঞ্চ দুটি রিভিউ আবেদন খারিজ করে এ আদেশ দেন।

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেয়া মৃত্যুদণ্ডের সাজা কমিয়ে ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে আপীল বিভাগ দেলোয়ার হোসেন সাঈদীকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেয়।

এর আগে সকাল সোয়া ৯টার দিকে রাষ্ট্রপক্ষ বক্তব্য উপস্থাপন শুরু করে।

বেঞ্চের অপর বিচারপতিরা হলেন- আবদুল ওয়াহহাব মিঞা, সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও মির্জা হোসেইন হায়দার।

রোববার থেকে আপিলের শুনানি শুরু হয়। এ দিন দুপুর ১২টা থেকে ১টা ৫ মিনিট পর্যন্ত দুই পক্ষের বক্তব্য শোনেন আদালত। পরে সোমবার পর্যন্ত তা মুলতবি করা হয়।

শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষে বক্তব্য দিচ্ছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। সাঈদীর পক্ষে বক্তব্য উপস্থাপন করবেন খন্দকার মাহবুব হোসেন। তার সঙ্গে আছেন এস এম শাহজাহান ও তানভীর আল আমিন।

১৯৭১ সালে মানবতা-বিরোধী অপরাধের দায়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে দেলোয়ার হোসেন সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ড দেয়।

কিন্তু সে রায়ের প্রতিক্রিয়ায় জামায়াতে ইসলামীর ডাকা হরতালের সময় পুলিশের সাথে সংঘর্ষে দেশের বিভিন্ন জায়গায় অর্ধ শতাধিক মানুষ নিহত হয়।

২০১৩ সালে ট্রাইবুনালের রায়ে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালে সংঘটিত হত্যা, লুণ্ঠন, নির্যাতনসহ অন্তত ২০টি মানবতাবিরোধী অভিযোগের মধ্যে আটটি অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে।

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার অভিযোগে একটি মামলায় ২০১০ সালের ২৯শে জুন প্রথম গ্রেপ্তার করা হয়েছিল মি. সাঈদীকে।
এরপর একাত্তরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় পিরোজপুরে হত্যা, লুণ্ঠন, নির্যাতনসহ বিভিন্ন অভিযোগে দায়ের করা মামলায় পরের বছর ১৪ই জুলাই তার বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেয় ট্রাইব্যুনাল।

নিউজবিডি৭১/এম/ ১৫ মে , ২০১৭

Share.

Comments are closed.