সেচে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে ১৬ সিদ্ধান্ত

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
আসন্ন সেচ মৌসুমে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে ১৬ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ। একইসঙ্গে চাহিদা বিদ্যুৎ বিভাগ।

ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত সময়টি সাধারণত সেচ মৌসুম হিসেবে বিবেচনা করা হয়। বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, আসন্ন এই সেচ মৌসুমে সারাদেশে ৪ লাখ ১৬ হাজার ২৩১টি বিদ্যুৎচালিত সেচ পাম্পের জন্য দুই হাজার ৪০৬ দশমিক ৭১২ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ প্রয়োজন হবে। এর ফলে সেচ মৌসুমে দেশে বিদ্যুতের চাহিদা দাঁড়াবে সাড়ে ১৩ হাজার মেগাওয়াট, যা গত বছর ছিল ১০ হাজার ৯৫৮ মেগাওয়াট।

বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এ প্রসঙ্গে সারাবাংলাকে বলেন, আসন্ন সেচ মৌসুমে সেচে চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে। কৃষিকে অগ্রাধিকার দিয়ে বিদ্যুৎ উৎপাদনে পর্যাপ্ত গ্যাস সরবরাহের জন্য পেট্রোবাংলাকে অনুরোধ করা হয়েছে। পর্যাপ্ত গ্যাস পেলে সেচ মৌসুমের সময় নিরবিচ্ছিন্ন গ্যাস সরবরাহে কোনো সমস্যা হবে না।

বিদ্যুৎ বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, আসন্ন সেচ মৌসুমে পাম্পে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে ১৬ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট দফতরকে এসব সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে সেচে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে গ্যাসের চাহিদা রয়েছে ১৪শ মিলিয়ন ঘনফুট। ন্যূনতম ১৩৫০ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। পাশাপাশি গ্যাসভিত্তিক যে বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো নির্বিঘ্নে উৎপাদন করতে সক্ষম, সেসব কেন্দ্রগুলোতে অগ্রাধিকারভিত্তিতে গ্যাস সরবরাহ করতে হবে। এছাড়া সিরাজগঞ্জ বিদ্যুৎকেন্দ্রে চাপ বেশি হওয়ায় এই কেন্দ্রে গ্যাস সরবরাহ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করবে পেট্রোবাংলা।

এদিকে, জ্বালানি তেল পরিবহনের ক্ষেত্রে যেন কোনো সমস্যা না হয়, সেজন্য বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে কাজ করবে পিডিবি। একইসঙ্গে জ্বালানি তেল পরিবহনে বাংলাদেশ রেলওয়ের সঙ্গ দীর্ঘমেয়াদি চুক্তিও করবে পিডিবি। একইভাবে বড়পুকুরিয়া কোল মাইনিং কোম্পানির সঙ্গে যোগযোগ করে কয়লার সুষ্ঠু সরবরাহ নিশ্চিত করবে পিডিবি।

বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা জানান, সেচে পানির সাশ্রয়ী ব্যবহারের লক্ষ্যে ওয়েট অ্যান্ড ড্রাই পদ্ধতি জনপ্রিয় করতে সারাদেশে ব্যাপক প্রচারণা চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করবে কৃষি মন্ত্রণালয় ও পাওয়ার সেল।

জ্বালানি তেল পরিবহন এবং বিদ্যুৎ স্থাপনা নিরাপত্তার জন্য স্থানীয় প্রশাসনকে নির্দেশনা দিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ জানানো এবং জেলা কমিটিগুলো যেন কার্যক্রম গ্রহণ করে, এজন্য জেলা প্রশাসকদের এরই মধ্যে চিঠি দিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ। পাশাপাশি প্রতিবছরের মতো এ বছরও সেচ পাম্পে রাত ১১টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের সমিতিগুলোকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে পর্যাপ্ত বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার মজুত রাখতে। তেলভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোতে অন্তত দুই মাসের জ্বালানি তেল মজুত রাখতেও নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগের অন্য সিদ্ধান্তগুলোর মধ্যে রয়েছে— দেশের সব বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো সেচকালীন সচল রাখার প্রস্তুতি নেওয়া, ২৪ ঘণ্টার কল সেন্টার ও হটলাইন চালু করা, সেচ পাম্পে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে মনিটরিং ব্যবস্থা চালু করা এবং পিক আওয়ারে (বিকেল ৫টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত) সেচ পাম্পে বিদ্যুৎ ব্যবহার না করতে জনসচেতনতা তৈরি করা। -সারাবাংলা

নিউজবিডি৭১/এম কে/ জানুয়ারি ১৫, ২০১৯




সরে দাঁড়ালেন রওশন এরশাদ

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
একাদশ জাতীয় নির্বাচনে নিজের পুরনো ময়মনসিংহ-৪ আসনের পাশাপাশি ময়মনসিংহ-৭ আসনে মনোনয়নপত্র দাখিল করলেও শেষটি থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিলেন জাতীয় পার্টির জ্যেষ্ঠ কো-চেয়ারম্যান ও সংসদে বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ।

তবে ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় একাদশ সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাহারের সময়সীমা পেরিয়ে যাওয়ায় এটি গ্রহণের সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস। 

ময়মনসিংহ-৭ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী করেছে হাফেজ রুহুল আমিন মাদানীকে। তবে ময়মনসিংহ-৪ আসনে আওয়ামী লীগ কোনো প্রার্থী রাখেনি।

ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক ও জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা সুভাষ বলেন, “মহাজোটের শরিক আওয়ামী লীগের প্রার্থী রুহুল আমিন মাদানীকে সমর্থন দিয়ে বিরোধীদলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তিনি ময়মনসিংহ-৭ আসন থেকে নির্বাচন করবেন না।”

“আজকে (বুধবার) এ কথা জানিয়ে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার সংক্রান্ত একটি চিঠি আমাকে পাঠিয়েছেন তিনি। তবে গত সোমবার প্রতীক বরাদ্দের পর নির্বাচন কমিশনের আইন অনুযায়ী প্রার্থিতা প্রত্যাহারের আর কোনো সুযোগ নেই।”

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ময়মনসিংহ-৭ আসনটি জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দিয়েছিল আওয়ামী লীগ।

জাতীয় পার্টির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এম এ হান্নান এই আসন থেকে নির্বাচিত হন। যুদ্ধাপরাধের মামলায় গ্রেপ্তদার হয়ে এখন কারাগারে রয়েছেন তিনি।

রওশন চিঠিতে লিখেছেন, ‘বৃহত্তর ঐক্যের স্বার্থে’ মহাজোট মনোনীত প্রার্থী মাদানীকে সমর্থন দিতে তিনি সরে দাঁড়ালেন।

এই নির্বাচনে জাতীয় পার্টি মহাজোট থেকে ২৬টি আসন পেলেও আরও প্রায় দেড়শ আসনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন দলটির নেতারা। তা নিয়ে আওয়ামী লীগের তৃণমূল পর্যায়ে ক্ষোভ রয়েছে।

নিউজবিডি৭১/আ/ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮




ভিকারুননিসার ৩ শিক্ষককে বরখাস্তের নির্দেশ

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষসহ তিন শিক্ষককে বরখাস্তের নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

একইসঙ্গে এ ঘটনায় এই তিন শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করার নির্দেশ ও তাদের এমপিও বাতিলের নির্দেশ দিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

অভিযুক্ত তিন শিক্ষক হলেন- ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতী শাখাপ্রধান জিনাত আরা এবং শ্রেণি শিক্ষক হাসনা হেনা।

অরিত্রির আত্মহত্যার ঘটনায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গঠিত তদন্ত কমিটির তদন্তে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার পর শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আজ বুধবার সচিবালয়ে এসব সিদ্ধান্তের কথা জানান।

নাহিদ বলেন, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের গঠিত তদন্ত কমিটি আত্মহত্যার প্ররোচণার অভিযোগের প্রমাণ পেয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত কমিটি মন্ত্রণালয়ে প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। প্রতিবেদনের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠানটির গভর্নিংবডিকে এই তিন শিক্ষককে বরখাস্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

নিউজবিডি৭১/আ/ডিসেম্বর ৫ , ২০১৮




রাজধানীতে পিতার হাতে শিশু খুন

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : রাজধানীর বাংলামোটরে একটি বাসায় পিতার হাতে সাফায়েত নামে তিন বছরের এক শিশু ‘খুন’ হয়েছে। আজ বুধবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। শাহবাগ থানার অভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

এ বিষয়ে শাহবাগ থানার এসআই চম্পক বাবু বলেন, বাড়িটিকে পুলিশ ঘিরে রেখেছে। তবে আমরা এখনও বাসার ভেতরে ঢুকতে পারিনি।

খুনের অভিযোগে অভিযুক্ত নুরুজ্জামানের ভাই উজ্জ্বল জানান, বাংলামোটরের এ বাসায় দুই শিশুসন্তান সাফায়েত ও সুরায়েতকে নিয়ে থাকেন তার ভাই। তবে অনেক দিন ধরে মাদকাসক্ত থাকায় তার দুই স্ত্রীর কেউ তার সঙ্গে থাকেন না।

তিনি আরও বলেন, সাফায়েতকে খুন করে তার ভাই সুরায়েতকেও জিম্মি করে রেখেছে। তবে কি কারণে এ খুনের ঘটনা তা তিনি জানাতে পারেন নি।

প্রতিবেশীরা বলেন, ওই ব্যক্তির নাম আখতারুজ্জামান কাজল। তিনি মাদকাসক্ত। এ কারণে তাঁকে ছেড়ে চলে গেছেন তাঁর স্ত্রী। তবে দুই ছেলেশিশু তাঁর কাছেই আছে। তবে কাজল ও উজ্জ্বলের মধ্যে পৈতৃক সম্পত্তি নিয়ে বিরোধ আছে।

শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসান বলেন, একটা বাচ্চা মারা যাওয়ার খবরে ছুটে এসেছি। কিন্তু আমরা বাসার ভেতরে ঢুকতে পারছি না। ভেতরে রয়েছেন শিশুটির বাবা কাজল। তাকে বুঝিয়েও বাসায় ঢুকতে পারিনি। এখন বিকল্প কোনো উপায় বের করতে হবে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, সকাল আটটার দিকে বাসা থেকে বের হন কাজল। বাসায় দোয়া পড়ানোর জন্য মৌলভি নিয়ে আসেন তিনি। পরে মৌলভি কাজলের বাসা থেকে বেরিয়ে দাবি করেন, সেখানে এক শিশুসন্তানকে অচেতন অবস্থায় দেখেছেন তিনি।

বিষয়টি শাহবাগ থানার পুলিশকে জানান তিনি। অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় শাহবাগ থানার পুলিশ।

নিউজবিডি৭১/আ/ডিসেম্বর ৫ , ২০১৮




শিক্ষার্থী অরিত্রির মৃত্যু: দ্বিতীয় দিনেও উত্তাল ভিকারুননিসা, পরীক্ষা বন্ধ

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারীর মৃত্যুর ঘটনায় দোষীদের বিচার ও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের অপসারণ দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো আজ বুধবারও বিক্ষোভ করছেন অভিভাবকরা ও শিক্ষার্থী। সকাল থেকে রাজধানীর বেইলি রোডের ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজের প্রধান ক্যাম্পাসের সামনে অবস্থান নিয়েছেন তারা। পরীক্ষা বর্জন করে রাজপথে নেমে আসে শিক্ষার্থীরা। অভিভাবকরাও যোগ দিয়েছেন তাদের সঙ্গে।

শিক্ষামন্ত্রীর দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী তিন দিনের মধ্যে সুষ্ঠু বিচার না হলে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেয়। এ ছাড়া কলেজ অধ্যক্ষ ও শাখাপ্রধানের পূর্ণ বরখাস্ত, গভর্নিং বডি বাতিল চেয়েছে তারা।

অরিত্রির মৃত্যুর ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে তার বাবা দিলীপ অধিকারী বাদী হয়ে রাজধানীর পল্টন থানায় একটি মামলা করেছেন। ৩০৫ ধারার এই মামলায় আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগ আনা হয়েছে। এতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতি শাখার প্রধান জিন্নাত আরা এবং অরিত্রির শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনাকে আসামি করা হয়েছে।

নিউজবিডি৭১/আ/ডিসেম্বর ৫ , ২০১৮




রাজধানীতে স্কুল ছাত্রীর মৃত্যু, অনেক প্রশ্ন?

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রি অধিকারীর মৃত্যু সামনে নিয়ে এসেছে অনেক প্রশ্ন। সোমবার মেধাবী এ শিক্ষার্থীর আত্মহননের পর দেশের শিক্ষা ব্যবস্থার দিকেই আঙুল উঁচিয়েছেন সংশ্নিষ্ট অনেকে। প্রশ্ন উঠেছে, এ কেমন শিক্ষা, যার জন্য শিক্ষার্থীকে জীবন দিতে হবে? শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকদের সঙ্গে শিক্ষকদের আচরণ নিয়েও কথা বলেছেন অনেকে।

নির্বাচনী ডামাডোলের মধ্যে সবকিছু ছাপিয়ে গতকাল সারাদেশে আলোচনার মূল বিষয় ছিল অরিত্রির মৃত্যু। শহরের রাজপথ থেকে বিপণিবিতান, মাঠ থেকে পাড়ার চায়ের দোকান কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক- সবখানে সবার বক্তব্য একটাই, এটা আসলে আত্মহত্যা নয়, ‘হত্যা’। বাবা-মাকে অপমানের মাধ্যমে অরিত্রিকে আত্মহত্যা করতে বাধ্য করা হয়েছে।

এ জন্য দায়ীদের বিচারও চেয়েছেন তারা দোষীদের বিচার ও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের অপসারণ দাবিতে গতকাল উত্তাল ছিল রাজধানীর বেইলি রোডের ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজের প্রধান ক্যাম্পাস। সকাল থেকেই পরীক্ষা বর্জন করে রাজপথে নেমে আসে শিক্ষার্থীরা। অভিভাবকরাও যোগ দেন তাদের সঙ্গে। শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের বিক্ষোভের মধ্যেই অরিত্রির আত্মহত্যার ঘটনা তদন্তে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজ কর্তৃপক্ষ পৃথক দুটি কমিটি করেছে। পাশাপাশি হাইকোর্টও এ ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন।দেশের নামকরা এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মূল শাখায় গতকাল সমবেত অনেক শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের চোখ ছিল অশ্রুসজল।

অকালে বন্ধু হারানোর বিচার দাবিতে ফুঁসে উঠেছে অরিত্রির সহপাঠীরা। বিদ্যালয়ের আঙিনা থেকে সড়ক পর্যন্ত ছিল স্লোগানে উত্তাল। আত্মহত্যার প্ররোচনার দায়ে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌসের অপসারণ, অরিত্রির মৃত্যুর ঘটনা তদন্ত করে দোষীদের শাস্তি এবং শিক্ষার্থীদের ওপর মানসিক নির্যাতন বন্ধের দাবিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির মূল গেট আটকে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থী-অভিভাবকরা। বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের কক্ষে তালা দেওয়ার চেষ্টা করে। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ ক্যাম্পাসে গিয়ে তাদের সান্বতনা দেওয়ার চেষ্টা করলে তাকে ঘিরে ও দোষীদের বিচার চেয়ে বিক্ষোভ দেখায় শিক্ষার্থীরা।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে বিদ্যালয়ের চলমান বার্ষিক পরীক্ষা ব্যাহত হচ্ছে। আজ বুধবারও পরীক্ষা বর্জন করে বিক্ষোভের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে তারা।এদিকে অরিত্রির মৃত্যুর ঘটনায় গতকাল রাতে তার বাবা দিলীপ অধিকারী বাদী হয়ে রাজধানীর পল্টন থানায় একটি মামলা করেছেন। ৩০৫ ধারার এই মামলায় আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগ আনা হয়েছে। এতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, প্রভাতি শাখার প্রধান জিন্নাত আরা এবং অরিত্রির শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনাকে আসামি করা হয়েছে। পল্টন থানার ওসি মাহমুদুল হাসান জানিয়েছেন, অভিযোগ তদন্ত করে আসামিদের বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অরিত্রির এক স্বজন জানিয়েছেন, গত সোমবার রাতেই অরিত্রির মরদেহ শাহজাহানপুরের একটি মন্দিরের পাশে সমাহিত করা হয়েছে।ভিকারুননিসা স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি গোলাম আশরাফ তালুকদার জানিয়েছেন, পুরো ঘটনার বিষয়ে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের কাছে কৈফিয়ত তলব করা হয়েছে। একজন ছাত্রীর ‘আত্মহত্যা’র মতো পরিস্থিতি কেন সৃষ্টি হলো, সে বিষয়ে তাকে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, একই সঙ্গে প্রভাতি শাখার প্রধান জিন্নাত আরাকে সাময়িক বরখাস্ত করে তাকে দায়িত্ব পালন থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।গতকাল নিজের কার্যালয়ে বলেন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস। তিনি দাবি করেন, পরীক্ষার হলে ওই ছাত্রীর সঙ্গে এমন কোনো ব্যবহার করা হয়নি, যাতে সে আত্মহত্যা করবে। শাখাপ্রধান (প্রভাতি) তাকে বলেছেন, অন্য শিক্ষার্থীর বেলায় যে নিয়ম, তার বেলায়ও একই নিয়ম প্রয়োগ করা হয়েছে।

শিক্ষার্থীর কাছে মোবাইল ফোন পাওয়া গেলে শাস্তির নিয়মটা কী- জানতে চাইলে অধ্যক্ষ বলেন, আসলে নিয়মটা আমার জানা নেই। তবে আমরা অভিভাবককে ডেকে তার সামনে এ বিষয়ে কথা বলি। ওই দিনের পরীক্ষা বন্ধ রাখা হয়। এটা প্রচলিত নিয়ম।তাহলে পরের দিন কেন অরিত্রির পরীক্ষা নেওয়া হলো না- এমন প্রশ্নে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি। এ সময় তিনি অরিত্রির আত্মহত্যার জন্য ক্ষমা চান।গত রোববার পরীক্ষার হলে মোবাইল ফোন সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিল নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি অধিকারী (১৫)। ফোনে নকল থাকার অভিযোগ তুলে তাকে পরীক্ষা থেকে বহিস্কার করা হয়।

এর পর তার বাবা-মাকে ডেকে পাঠায় স্কুল কর্তৃপক্ষ। গত সোমবার সকালে তারা স্কুলে যান এবং মেয়ের হয়ে দফায় দফায় ক্ষমা চান। উপাধ্যক্ষের কক্ষ থেকে তাদের বের করে দেওয়া হয়। পরে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের কক্ষে তারা গেলে তিনিও তাদের অপমান করেন এবং স্কুল থেকে অরিত্রি অধিকারীকে ছাড়পত্র দেওয়ার হুমকি দেন। নিজের সামনে বাবা-মায়ের এমন অপমান সইতে না পেরে ওই দিন দুপুরে শান্তিনগরের বাসায় ফিরে গলায় ওড়না দিয়েফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে ওই ছাত্রী। ওই ঘটনার জেরে গতকাল শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের আন্দোলনে উত্তাল হয়ে ওঠে ভিকারুননিসা ক্যাম্পাস।

আন্দোলনে অংশ নেওয়া কয়েকজন অভিভাবক জানান, এমন শোকাহত ঘটনার পর তারা আশা করেছিলেন, মঙ্গলবার স্কুলের সব পরীক্ষা স্থগিত করা হবে। কিন্তু এই ধরনের কোনো বার্তা না পেয়ে তারা তাদের মেয়েদের নিয়ে স্কুলে আসেন। স্কুল কর্তৃপক্ষ অরিত্রির মৃত্যু নিয়ে শোক পালন তো দূরের কথা, ক্যাম্পাসের কোথাও একটি ব্যানারও টানায়নি। এতে ক্ষুব্ধ হন তারা। অরিত্রির সহপাঠীসহ অন্যান্য শ্রেণির ছাত্রীরা এমন ঘটনার পর পরীক্ষা দিতে না চাইলে উল্টো স্কুল কর্তৃপক্ষ মঙ্গলবারও ছাড়পত্র দেওয়ার ভয় দেখায়।

এতেই মূলত ফুঁসে ওঠেন অভিভাবক ও শিক্ষার্থীরা।প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শতাধিক অভিভাবক ও শিক্ষার্থী ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের মূল শাখার ১ নম্বর গেটের সামনে অবস্থান নেন। একপর্যায়ে সেখানে আরও শতাধিক শিক্ষার্থী ও অভিভাবক উপস্থিত হন। তারা অরিত্রি অধিকারীকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়ার অভিযোগ তুলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটির ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের অপসারণ দাবি করে বিভিন্ন স্লোগান দেন। প্রভাতি শাখার শিক্ষার্থীদের এ অবস্থানের সঙ্গে দুপুর ১২টার দিকে দিবা শাখার শিক্ষার্থীরাও বিক্ষোভে অংশ নেয়।

শত শত শিক্ষার্থীর অবস্থানের কারণে একপর্যায়ে অফিসার্স ক্লাব মোড় থেকে বেইলি রোডে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। শিক্ষার্থীদের একটি অংশ দুপুরের দিকে অধ্যক্ষের কক্ষে তালা দিতে চাইলেও তারা তার কক্ষের সামনে যাওয়ার আগেই তাদের আটকে দেওয়া হয়। পরে তারা ক্যাম্পাসের ভেতরও অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে বিভিন্ন স্লোগান দেয়।বিপ্লব কুমার পাল নামের একজন অভিভাবক বলেন, তার মেয়েও অরিত্রির সঙ্গে একই ক্লাসে পড়ে। এমন ঘটনার পর মেয়েটি রাতভর কান্নাকাটি করেছে। পড়তে পারেনি। এমন পরিস্থিতিতে আজকের (মঙ্গলবার) পরীক্ষাটা স্থগিতের জন্য তারা স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছিলেন।

কিন্তু কর্তৃপক্ষ উল্টো অনুপস্থিত দেখিয়েপরীক্ষার রেজাল্ট আটকে দেওয়ার ভয় দেখায়। বাধ্য হয়ে মেয়েকে পরীক্ষা কেন্দ্রে পাঠিয়ে তিনি ঘটনার বিচার চাইছেন।গোপাল সাহা নামের এক অভিভাবক বলছিলেন, একজন শিক্ষিকা, একজন অধ্যক্ষ তো এত নিষ্ঠুর হতে পারেন না। একজন ছাত্রীকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছেন অধ্যক্ষ। অবশ্যই তার অপসারণ করতে হবে। তা না হলে অভিভাবক হিসেবে নিজের সন্তান নিয়ে তো তারা স্বস্তি পাচ্ছেন না।অভিভাবকরা বলেন, নানা কারণেই শিক্ষকরা ক্লাসে শিক্ষার্থীদের মানসিকভাবে নির্যাতন করে আসছেন। ২০১২ সালেও শিক্ষকদের মানসিক নির্যাতনে চৈতী রায় নামে নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছিল। আগেরগুলোর বিচার না হওয়ায় শিক্ষকদের অমানবিক আচরণ দিন দিন আরও নিষ্ঠুর হচ্ছে।

এ ছাড়া নিয়োগ ও ভর্তি-বাণিজ্য, আর্থিক দুর্নীতি ও অনিয়ম বন্ধে গতকাল শিক্ষামন্ত্রীর কাছে দাবি জানান অভিভাবকরা।এর আগে ২০১১ সালে বিদ্যালয়ের বসুন্ধরা শাখায় পরিমল জয়ধর নামের এক শিক্ষক দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে নিজ কোচিংয়ে ধর্ষণ করলে ভিকারুননিসার সব শাখার ছাত্রীরা একযোগে ঘটনার বিচার ও তৎকালীন অধ্যক্ষ হোসনে আরা বেগমের পদত্যাগ চেয়ে আন্দোলনে নামে।একি শুধু আত্মহত্যা : অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যাকে ‘আত্মহত্যা’ বলতে চায় না তার সহপাঠীরা। তাদের দাবি, ছোট্ট অপরাধে অরিত্রিকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছেন শিক্ষকরা। গতকাল বিক্ষোভের সময় অনেক ছাত্রীর হাতে ‘একি শুধু আত্মহত্যা?’ লেখা প্ল্যাকার্ড ছিল।

অরিত্রির সহপাঠী সুলতানা বিলকিস বলছিল, তারা শ্রেণিকক্ষে নিয়মিত নানা লাঞ্ছনার শিকার হচ্ছে। কারও কোনো সমস্যা থাকলে সেগুলো শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে সমঝোতা করা উচিত। সেজন্য পরিবারকে বিব্রত করা উচিত নয়। তার দাবি, অরিত্রিকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছেন শিক্ষকরাই।অবরুদ্ধ শিক্ষামন্ত্রী : শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কথা শুনে তাদের সান্ত্বনা দিতে সকাল সাড়ে ১১টার দিকে ভিকারুননিসায় ছুটে আসেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। বিদ্যালয় থেকে তিনি ফিরে যাওয়ার সময় ফটকে বিক্ষোভকারীরা তাকে গাড়ির ভেতরই ঘিরে ধরে। তারা শিক্ষামন্ত্রীর কাছে ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিজ’ স্লোগান তুলে অরিত্রির মৃত্যুর ঘটনায় অধ্যক্ষের অপসারণ দাবি করে। অভিভাবকরা যোগ দেন শিক্ষার্থীদের সঙ্গে। এক পর্যায়ে তিনি অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। প্রায় ২০ মিনিট তিনি অবরুদ্ধ ছিলেন।

এর আগে শিক্ষামন্ত্রী স্কুল প্রাঙ্গণে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের উদ্দেশে বলেন, অরিত্রির আত্মহত্যা হৃদয়বিদারক ঘটনা। এর পেছনে বা ঘটনার সঙ্গে যারাই জড়িত থাকুক, যদি প্রমাণ পাওয়া যায়, জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা : গতকাল বিকেল ৫টা পর্যন্ত বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। পরে সব শিক্ষার্থীর পক্ষে আনুশাকা নামে নবম শ্রেণির একজন ছাত্রী ঘোষণা দেয়, আজ বুধবার সকাল ১০টা থেকে তারা পরীক্ষা বর্জন করে কালো ব্যাজ ধারণ করে স্কুলের প্রধান ফটকে অবস্থান নেবে। পাশাপাশি শিক্ষামন্ত্রীর দেওয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী তিন দিনের মধ্যে সুষ্ঠু বিচার না হলে তারা আন্দোলন চালিয়ে যাবে। এ ছাড়া কলেজ অধ্যক্ষ ও শাখাপ্রধানের পূর্ণ বরখাস্ত, গভর্নিং বডি বাতিল চেয়েছে তারা।বিকেলে সিদ্দিকী নাসির উদ্দীন নামে এক অভিভাবক জানান, তিন দফা দাবিতে তারা আন্দোলন করছেন। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও প্রচলিত আইনে বিচার, অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ ও পরিচালনা কমিটির সদস্যদের অপসারণ বা পদত্যাগ এবং প্রতিষ্ঠানটির জবাবদিহি নিশ্চিত করার জন্য তারা আন্দোলন করছেন।

বিভিন্ন সংগঠনের নিন্দা : অরিত্রির মৃত্যুর ঘটনায় বিভিন্ন সংগঠন ও সংস্থা নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছে। গতকাল এক বিবৃতিতে আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) অরিত্রির মৃত্যুর ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বলেছে, ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে হবে।এ ছাড়া সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ওই ঘটনার নিন্দা জানিয়ে আজ বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের ডাক দিয়েছে।

নিউজবিডি৭১/আ/ডিসেম্বর ৫ , ২০১৮




নিখোঁজ স্বজনের সন্ধান চেয়ে কাঁদলেন তারা

ঢাকা:  হারিয়ে যাওয়া প্রিয় মানুষটি বেঁচে আছেন কি-না জানেন না তারা। স্বজন নিখোঁজ হওয়ার পর অনেক খুঁজেছেন, পাননি। এখন তাদের প্রশ্ন, কীভাবে দাবি জানালে, কার কাছে গেলে হারিয়ে যাওয়া সন্তান, ভাই, স্বামী, বাবার খোঁজ পাওয়া যাবে? গত কয়েক বছরে নিখোঁজ হওয়া ২২ জনের পরিবারের সদস্যদের সংগঠন ‘মায়ের ডাক’ আয়োজিত আলোচনা সভায় এভাবেই আহাজারি করেছেন, কান্নায় ভেঙে পড়েছেন নিখোঁজ মাসুমের মা, সুমনের বোন, সোহেলের শিশুসন্তান, এরশাদ আলীর বাবাসহ অনেকে।

অনুষ্ঠানে আলোচনায় অংশ নিয়ে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, আমরা গল্প শুনতাম রাক্ষস মানুষ খায়। এখন সরকার সেই রাক্ষসের ভূমিকায়, এ সরকারের লোকজন মানুষ খেয়ে ফেলছে।

ঢাকা মহানগরের ২৫ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক নিখোঁজ সাজেদুল ইসলাম সুমনের মা হাজেরা বেগমের সভাপতিত্বে মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের অধ্যাপক ড. আসিফ নজরুল, বাসদের খালেকুজ্জামান ভূঁইয়া, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান জোনায়েদ সাকি, গণমুক্তি কাউন্সিলের সাধারণ সম্পাদক ফয়জুল হাকিম লালা এবং বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল। আলোচনা সভায় টানানো ব্যানার ও প্ল্যাকার্ডে দেশে ক্রসফায়ার এবং গুম বন্ধে রাজনৈতিক দলগুলোর নির্বাচনী ইশতেহারে সুস্পষ্ট ঘোষণার দাবি জানানো হয়।

অনুষ্ঠানে প্রথমেই বক্তব্য দেন নিখোঁজ ব্যক্তিদের পরিবারের সদস্যরা। নিখোঁজ আব্দুল কাদের মিয়া মাসুমের মা আয়েশা বেগম কান্নায় ভেঙে পড়ে বলেন, সন্তানই আমার সবচেয়ে বড় সম্পদ। সন্তান হারিয়ে আমি এখন নিঃস্ব। নতুন বছরে সন্তানকে ফেরত পাওয়ার নিশ্চয়তা চাই।

সাজেদুল ইসলাম সুমনের বোন মারুফা ইসলাম ফেরদৌসী বলেন, এখানে ২২ পরিবারের সদস্যরা আছেন। এই পরিবারগুলো প্রিয় মানুষ হারিয়ে বুকে পাথর চেপে দিন কাটাচ্ছে। তাদের সবার একটাই দাবি, একই প্রত্যাশা, প্রিয় স্বজন ফিরে আসুক। এ সময় সুমনের মেয়ে রাইদা চিৎকার করে কেঁদে বলেন, এ কেমন দেশ? বাবাকে খুঁজতে সব জায়গায় গেছি, কেউ খোঁজ দিতে পারেনি। এ দেশে কি বাবাকে আর খুঁজে পাওয়া যাবে না?

আরেকজন নিখোঁজ সোহেলের ছোট্ট মেয়ে সাফা এ সময় ফুঁপিয়ে কেঁদে উঠে বলে, ‘এক বছর ধরে বাবা নেই, তাই একদম ভালো লাগে না। বাবাকে ছাড়া স্কুলে যেতেও ইচ্ছে করে না।’ একই সঙ্গে কেঁদে ওঠে প্রশ্ন ছুঁড়ে দেয় নিখোঁজ মারুফ জামানের শিশুসন্তান সামিরা। সে বলে, ‘এক বছর ধরে বাবা আসছে না, বাবাকে পাচ্ছি না, কেন পাচ্ছি না, আপনারা কিছু বলেন না কেন?’

নিখোঁজ সেলিম রেজা পিন্টুর বোন রেহানা বেগম আকুতি জানিয়ে বলেন, ‘কিছুই চাই না, শুধু ভাইটাকে ফেরত দেন’। নিখোঁজ এরশাদ আলীর বাবা মাহবুব আলী কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘বৃদ্ধ বয়সে সন্তান হারানোর মতো সর্বনাশের শিকার হলাম। আমার ছেলেটাকে কি আর কখনও ফিরে পাব না?’

আলোচনায় অংশ নিয়ে বেদনার্ত স্বজনের উদ্দেশে মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, কেঁদে কী হবে? এ সরকারের কেউ আপনাদের কথা শুনবে না। এ সরকারে যারা দায়িত্বে আছেন তারা সম্পূর্ণ দায়িত্বজ্ঞানহীন, মানুষের জন্য তাদের কোনো দরদ নেই। আমরা গল্প শুনতাম রাক্ষস মানুষ খায়। এখন এই সরকার রাক্ষসের ভূমিকায়, সরকারের লোকজন মানুষ খেয়ে ফেলছে।

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা মান্না আরও বলেন, এখন যেভাবে স্বজনের ছবি বুকে নিয়ে এসেছেন, এভাবে বুকের ভেতরে ছবি, প্ল্যাকার্ড নিয়ে এলাকায় যান। সবাইকে বলুন, শপথ নিন- যারা মানুষ গুম করে তাদের ভোটের মাধ্যমে পরাজিত করতে হবে। আপনাদের কান্নাকে বারুদে পরিণত করুন।

ড. আসিফ নজরুল বলেন, পৃথিবীর সব দেশের আইনেই গুম জঘন্যতম অপরাধ হিসেবে সংজ্ঞায়িত আছে। গুম খুনের চেয়েও জঘন্যতম অপরাধ। একাধিক আন্তর্জাতিক আইনে বলা হয়েছে, গুম যখন পরিকল্পিতভাবে হয় এবং অধিক সংখ্যায় হয় তখন সেটা মানবতাবিরোধী অপরাধ। দেশে যারা গুমের শিকার হয়েছেন তারা সবাই সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মী। এ কারণে এটা বিশ্বাস করার যথেষ্ট কারণ আছে যে এসব গুম পরিকল্পিতভাবে হয়েছে এবং গুমের সংখ্যাও অনেক।

খালেকুজ্জামান বলেন, কোনো সুস্থ চিন্তার মানুষ, সভ্য মানুষ এভাবে গুমের ঘটনা মেনে নিতে পারে না। গুমের বিচার হতেই হবে।

জোনায়েদ সাকি বলেন, কান্না, হাহাকার ও অন্তরের রক্তক্ষরণের মধ্যেই আমরা সবাই আছি।

তাবিথ আউয়াল বলেন, গুমের জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না বলেই গুম বন্ধ হচ্ছে না।

নিউজবিডি৭১/বিসিপি/ ৪ ডিসেম্বর, ২০১৮




ভিকারুননিসার ছাত্রীর আত্মহত্যায় বুধবার শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা বর্জন, আন্দোলন

নিউজবিডি৭১ডটকম 
ঢাকা : সহপাঠীর আত্মহত্যার ঘটনায় দায়ীদের বিচার দাবিতে  বুধবার পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের মূল ক্যাম্পাসের আন্দোলনরত ছাত্রীরা।

মঙ্গলবার বিকেল পাঁচটার দিকে অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ শেষে সব শিক্ষার্থীর পক্ষে আনুশাকা নামে নবম শ্রেণির এক ছাত্রী কর্মসূচি ঘোষণা করে।

আনুশাকা জানায়, বুধবার তারা পরীক্ষা বর্জন করে কালো ব্যাজ ধারণ করে স্কুলের প্রধান ফটকে অবস্থান নেবে। পাশাপাশি শিক্ষামন্ত্রীর দেয়া প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী তিন দিনের মধ্যে সুষ্ঠু বিচার না হলে আন্দোলন অব্যাহত থাকবে।

সিদ্দিকী নাসির উদ্দীন নামে এক অভিভাবক জানান, তিন দফা দাবিতে তারা আন্দোলন করছেন। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও প্রচলিত আইনে বিচার, অধ্যক্ষ, উপাধ্যক্ষ ও পরিচালনা কমিটির সদস্যদের অপসারণ বা পদত্যাগ এবং প্রতিষ্ঠানটির জবাবদিহি নিশ্চিত করার জন্য তাদের এই আন্দোলন।

গত রোববার পরীক্ষার হলে মোবাইল ফোন সঙ্গে নিয়ে গিয়েছিল নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি অধিকারী (১৫)। ফোনে নকল থাকার অভিযোগ তুলে তাকে পরীক্ষা থেকে বহিষ্কার করা হয়।

এরপর ওই ছাত্রীর বাবা-মাকে ডেকে পাঠায় স্কুল কর্তৃপক্ষ। সোমবার সকালে তারা স্কুলে যান এবং মেয়ের হয়ে দফায় দফায় ক্ষমা চান। কিন্তু এরপরও ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ তাদের অপমান করেন এবং স্কুল থেকে অরিত্রি অধিকারীকে ছাড়পত্র দেওয়ার ঘোষণা দেন।

নিজের সামনে বাবা-মায়ের এমন অপমান সইতে না পেরে ওইদিন দুপুরে শান্তিনগরের বাসায় ফিরে গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে ওই ছাত্রী। ওই ঘটনার জেরে মঙ্গলবার শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের আন্দোলনে উত্তাল হয়ে উঠে বেইলি রোডে ভিকারুননিসার ক্যাম্পাস।

অরিত্রি রায়ের আত্মহত্যাকে আত্মহত্যা বলতে চায় না তার সহপাঠীরা। তাদের দাবি, ছোট্ট অপরাধে অরিত্রিকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছেন শিক্ষকরা।

মঙ্গলভার বিক্ষোভের সময় অনেক ছাত্রীর হাতে ‘একি শুধু আত্মহত্যা?’ লেখা প্ল্যাকার্ড ছিল। অরিত্রির অনেক সহপাঠী ‘চিটিংয়ের পানিশমেন্ট মৃত্যু কবে থেকে?’ লেখা ফেস্টুন নিয়েও বিক্ষোভ করেন।

অরিত্রির একজন স্বজন জানিয়েছেন, অরিত্রির আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ তুলে আজকালের মধ্যেই মামলা করবেন বাবা দিলীপ অধিকারী। কারা ঘটনায় জড়িত তাদের নাম-ঠিকানা সংগ্রহ করে এই মামলা করা হবে। তা ছাড়া পরিবারটি এখনও শোকাচ্ছন্ন থাকায় মামলা করতে বিলম্ব হচ্ছে।

পল্টন থানার ওসি মাহমুদুল হাসান বলেন, মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত অরিত্রির আত্মহত্যার ঘটনায় থানায় কোনো মামলা হয়নি। পুলিশ ওই ছাত্রীর পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। তারা পরে মামলা করবে বলে জানিয়েছেন।

নিউজবিডি৭১/বিসিপি/ ৪ ডিসেম্বর, ২০১৮




‘অরিত্রির ঘটনায় আমি ক্ষুব্ধ ও মর্মাহত’

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : শিক্ষকের কাছে বাবার অপমান সইতে না পেরে রাজধানীর ভিকারুননিসা নূন স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী অরিত্রি অধিকারীর আত্মহত্যার ঘটনায় দু’টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং ভিকারুননিসা নূন স্কুল ও কলেজ কর্তৃপক্ষ মঙ্গলবার এ দু’টি তদন্ত কমিটি করে। দুই কমিটিকেই আগামী তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, আমি ক্ষুব্ধ ও মর্মাহত। ঘটনাটি অত্যন্ত হৃদয় বিদারক। এ বিষয়ে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সঙ্গে কথা হয়েছে। অভিযোগ ও ক্ষোভের কথা শুনেছি। তাদের বলেছি, কেউ অপরাধী হলে অবশ্যই শাস্তি পাবে।

আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বেইলি রোডে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ ক্যাম্পাসে আসেন শিক্ষামন্ত্রী। সেখানে তিনি স্কুলের শিক্ষক, অভিভাবক ও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, একজন শিক্ষার্থী কতটা অপমানিত হলে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়? ঘটনার পেছনের কথাও শুনছি। ঘটনার পেছনে বা ঘটনার সঙ্গে যারাই জড়িত থাকুক, প্রমাণ পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নাহিদ জানান, এ ঘটনায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের ঢাকা অঞ্চলের পরিচালক অধ্যাপক মোহাম্মদ ইউসুফকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিকে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

ভিকারুননিসা নূন স্কুল দীর্ঘদিন ধরে অভিভাবকদের পছন্দের উল্লেখ করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, অভিভাবকেরা তাদের ছেলেমেয়েদের এখানে পড়াতে চান। জনপ্রিয়তার কারণে স্কুল কর্তৃপক্ষের নানা অনিয়মের কথা আগেও কানে এসেছে।

এদিকে ছাত্রীর আত্মহত্যার ঘটনায় তিন সদস্যের পৃথক তদন্ত কমিটি গঠনের কথা বলেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। স্কুলটির ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল নাজনীন ফেরদৌস বলেন, এ ঘটনায় আমরা তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছি। কমিটিকে তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- স্কুলের গভর্নিং বডির সদস্য আতাউর রহমান, খুরশিদ জাহান ও ফেরদৌসী জাহান।

তিনি আরও বলেন, যে শিক্ষক তাকে ভর্ৎসনা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে তদন্তে এর প্রমাণ পাওয়া গেলে স্কুলের নিয়ম অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এর আগে অরিত্রির বাবা সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ী দিলীপ অধিকারী বলেন, অরিত্রি পরীক্ষার হলে মোবাইলে নকল করছে— এমন অভিযোগে তাকে সোমবার বাবা-মাকে নিয়ে স্কুলে যেতে বলা হয়। তিনি স্ত্রী ও অরিত্রিকে নিয়ে স্কুলে যান। তারা প্রথমে ভাইস প্রিন্সিপালের কক্ষে যান। তারা মেয়ের হয়ে তার কাছে ক্ষমা চান। কিন্তু তিনি তাদের অপমান করে বের হয়ে যেতে বলেন। মেয়ের টিসি নিয়ে যেতেও বলেন ভাইস প্রিন্সিপাল। এরপর তিনি প্রিন্সিপালের কাছে গিয়ে ক্ষমা চান। একপর্যায়ে অরিত্রি তার পা ধরে ক্ষমা চায়। তাতেও কাজ হয়নি। প্রিন্সিপাল তাদের অপমানজনক কথাবার্তা বলে তার কক্ষ থেকে বের করে দেন।

তিনি আরও বলেন, ওই ঘটনার পর অরিত্রি প্রিন্সিপালের রুম থেকে দৌড়ে বের হয়ে যায়। তারাও তার পিছু নেন। স্কুল থেকে বের হয়ে মেয়ে একাই একটি রিকশায় তাদের শান্তিনগরের বাসায় চলে আসে। পরে তারা ফিরে দেখেন, নিজের ঘরে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় ঝুলছে অরিত্রির নিথর দেহ। দ্রুত তাকে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় একটি হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে তাকে নেওয়া হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিউজবিডি৭১/আ/ডিসেম্বর ৪ , ২০১৮




মুন্সীগঞ্জে অ্যাম্বুলেন্সের ওপর কন্টেইনার পড়ে রোগীর মৃত্যু

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় অ্যাম্বুলেন্সের ওপর কন্টেইনার পড়ে আব্দুর রাজ্জাক (৭০) নামে এক রোগীর মৃত্যু হয়েছে । এ সময় তার মেয়ে লায়লা খাতুন লাকী ও চালকসহ চারজন আহত হয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে উপজেলার বাউশিয়া এলাকায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

গজারিয়া থানার ভবেরচর হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক হাবিবুর রহমান জানান, দুর্ঘটনা কবলিত অ্যাম্বুলেন্স ও কন্টেইনার বহনকারী লং ভেহিক্যাল ( ১৬ চাকা বিশিষ্ট গাড়ি) পুলিশের হেফাজতে রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান , সকাল এগারটার দিকে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী রোগী বহনকারী ইউনিক নামের অ্যাম্বুলেন্স বাউশিয়া এলাকা অতিক্রমের সময় মহাসড়কে যানজট থাকায় বিপরীত লেনে ঢোকার জন্য ইউটার্ন নেয়। অ্যাম্বুলেন্সটির ঠিক পেছনেই ছিল চট্টগ্রাম বন্দর থেকে কন্টেইনার বহনকারী লং ভেহিক্যালটি।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে গজারিয়া ফায়ার স্টেশনের ব্যবস্থাপক দীপু খান জানান, অ্যাম্বুলেন্সটি বাঁচাতে কন্টেইনারবাহী ১৬ চাকার ভেহিক্যাল আচমকা ব্রেক কষলে সড়ক বিভাজনে গিয়ে ধাক্কা লাগে। এতে গাড়িতে থাকা একটি কন্টেইনার অ্যাম্বুলেন্সের ওপরে পড়ে। এতে চাপা পড়ে রোগী আব্দুর রাজ্জাক মারা যান এবং তার মেয়ে লাকীকে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা এক ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে উদ্ধার করে।

গজারিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক জিয়াউল ইসলাম জানান, লাকীর শারীরিক জখম কম হলেও তিনি মানসিক চোট পেয়েছে অনেক বেশি।

নিউজবিডি৭১/আ/নভেম্বর ২৯, ২০১৮




অতর্কিত হামলায় ১৫ জন আহতের ঘটনায় রূপগঞ্জে ইউপি সদস্য গ্রেফতার

নিউজবিডি৭১ডটকম
শরিফ হোসেন লিটন,রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ): নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার মাহনা এলাকায় স্থানীয় সন্ত্রাসীদের ধারালো অস্ত্রেসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে অতর্কিত হামলায় নারীসহ ১৫ জন আহতের ঘটনায় অভিযুক্ত ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।শনিবার বিকেলে উপজেলার গোলাকান্দাইল এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত রফিকুল ইসলাম গোলাকান্দাইল ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের সদস্য। তার পিতার নাম মৃত বিল্লাল হোসেন ভুইয়া। মামলার বাদীর বরাত দিয়ে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান মনির জানান, গত বুধবার সকালে মাহনা এলাকার মনির হোসেন নিজস্ব জমিতে দিয়ে ড্রেনের জন্য পাইপ বসানোর কাজ করতে গেলে প্রতিপক্ষ মান্নান মিয়া বাঁধা প্রদান করেন। এ নিয়ে মান্নান মিয়াসহ তার লোকজন মনির হোসেনকে চর থাপ্পর মারে। মনির
হোসেনের শশুর বাড়ির আত্বীয় স্বজনরা মনির হোসেনের বাড়িতে পিঠার দাওয়াত খেতে গিয়ে চরথাপ্পরের ঘটনা শুনে প্রতিবাদ করেন। এসময় প্রতিপক্ষ মান্নান মিয়াসহ তার লোকজন মনির হোসেনের শশুর
বাড়ির আত্বীয় স্বজনদের গালিগালাজ শুরু করে। গালিগালাজের প্রতিবাদ করতে গেলে বাকবিতন্ড্ধাসঢ়; ও উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরে মনির হোসেনের শশুর বাড়ির আত্বীয় স্বজনদের দুটি মাইক্রোবাস ভাংচুর করে
মান্নান ও তার লোকজন। গাড়ি ভাংচুরে সহযোগীতা করে স্থানীয় ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম। এক পর্যায়ে উদ্দেশ্য প্রণোনিত ভাবে ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম ও মান্নান মিয়াসহ তাদের লোকজন এলাকায় ডাকাত পড়েছে বলে মসজিদের মাইক দিয়ে মাইকিং করিয়ে ধারালো অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মনির হোসেনের আত্বীয় স্বজনদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। হামলায় নারীসহ ১৫ জনের মতো আহত হয়। এদের মধ্যে রাসেল মিয়া ও সাইফুল ইসলামের নারী ভুরি বের করে দেয়া হয়। এরা দু’জন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। এছাড়া আশরাফ ও রাজু আহাম্মেদকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ইসলামী ব্যাংক সেন্ট্রাল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। এ ঘটনায় মনির হোসেনের শাশুরী মনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। বাদী অভিযোগ করেন, মামলা দায়েরের পর থেকেই ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম, মান্নান মিয়াসহ অভিযুক্তরা মামলা তুলে নেয়ার জন্য বাদীকে চাপ প্রয়োগ করে আসছে। শনিবার বিকেলে গোপন সংবাদের ভিত্তিত্বে ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হয়। ঘটনার সঙ্গে জড়িত বাকিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। মামলার বাদী মনোয়ারা বেগম জানান, লাইফ সাপোর্টে থাকা ওই চার জন আল্লাহ তায়ালা বলতে পারবেন, তারা বাঁচবে না মরবে। আর বেশি কিছু বলার নেই।

নিউজবিডি৭১/বিসি/নভেম্বর ২৫, ২০১৮




রূপগঞ্জে সন্ত্রাসীদের হামলায় আহতদের অবস্থার অভন্নতি,মামলা তুলে নিতে হুমকি

নিউজবিডি৭১ডটকম
মো. শরিফ হোসেন,ডেমরা : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার মাহনা এলাকায় স্থানীয় সন্ত্রাসীদের ধারালো অস্ত্রেসস্ত্রে সজ্জিত হয়ে অতর্কিত হামলায় আহতরা মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। শুধু তাই নয়, মামলা তুলে না নিলে মামলার বাদীকে কেটে টুকরো টুকরো করে শীতলক্ষ্যা নদীতে ভাসিয়ে দেয়ার হুমকি দিয়েছে হামলাকারীরা । হুমকির পর থেকেই চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বাদীসহ বাদীর পরিবার। এর আগে, গত বুধবার দুপুরে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সন্ত্রাসীদের অতর্কিত হামলায় অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে।

মামলার বাদী মনোয়ারা বেগম জানান, তার বাড়ি উপজেলার যাত্রামুড়া এলাকায়। মাহনা এলাকার মনির হোসেনের সঙ্গে তার মেয়ে শাহনাজ বেগমের বিয়ে দেন। জামাতা মনির হোসেন নিজস্ব জমি দিয়ে ড্রেনের জন্য পাইপ বসানোর কাজ করতে থাকেন। এসময় একই বাড়ির প্রতিপক্ষ মান্নান মিয়া পাইপ বসানোর কাজে বাঁধা প্রদান করেন। এক পর্যায়ে মান্নান মিয়াসহ তার লোকজন মনির হোসেনকে চর থাপ্পর মারে। এদিকে, মনির হোসেনের শশুর বাড়ির আত্বীয় স্বজনরা মনির হোসেনের বাড়িতে পিঠার দাওয়াত খেতে গিয়ে চরথাপ্পরের ঘটনা শুনে প্রতিবাদ করেন।

এসময় প্রতিপক্ষ মান্নান মিয়াসহ তার লোকজন মনির হোসেনের শশুর বাড়ির আত্বীয় স্বজনদের গালিগালাজ শুরু করে। গালিগালাজের প্রতিবাদ করতে গেলে বাকবিতন্ড্ াও উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। পরে মনির হোসেনের শশুর বাড়ির আত্বীয় স্বজনদের দুটি মাইক্রোবাস ভাংচুর করে মান্নান ও তার লোকজন। গাড়ি ভাংচুরে সহযোগীতা করে স্থানীয় ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম।

এক পর্যায়ে ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম ও মান্নান মিয়াসহ তাদের লোকজন এলাকায় ডাকাত পড়েছে বলে মসজিদের মাইক দিয়ে মাইকিং করিয়ে ধারালো অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে মনির হোসেনের শশুর বাড়ির আত্বীয় স্বজনদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় মনির হোসেনসহ মনির হোসেনের শশুর বাড়ির আতœীয় স্বজন রাসেল মিয়া, সাইফুল ইসলাম, মহসিন মোল্লা, আশিকুর রহমান, আশরাফ, রাজু আহাম্মেদ, জামান মিয়া, রিয়াদ মিয়া, রবি মিয়া, ফরিদ, আফরোজা, সুফিয়া বেগম, মুন্না, শহিদুল আলমকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করা হয়। এদের মধ্যে রাসেল মিয়া ও সাইফুল ইসলামের নারী ভুরি বের করে দেয়া হয়। এরা দু’জন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে। এছাড়া আশরাফ ও রাজু আহাম্মেদকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ইসলামী ব্যাংক সেন্ট্রাল হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। এছাড়া আহত অন্যান্যরা বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ব্যপারে মনির হোসেনের শাশুরী মনোয়ারা বেগম বাদী হয়ে হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করার পর থেকেই মামলা তুলে না নিলে বাদীকে কেটে টুকরো টুকরো করে শীতলক্ষ্যা নদীতে ভাসিয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে আসছে বলে অভিযোগ করেছেন মামলার বাদী মনোয়ারা বেগম।

এলাকাবাসী জানান, এলাকায় ডাকাত পড়েছে বলে মাইকিং করায় ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম ও মান্নান মিয়া। এলাকার মানুষ উস্কিয়ে দিয়ে তারা এ ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটাবে কেউ চিন্তাও করতে পারেনি। ইউপি সদস্য রফিকুল ইসলাম ও মান্নান মিয়ার দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি জানান তারা।

এ বিষয়ে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান মনির বলেন, মামলার আসামীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

নিউজবিডি৭১/এম/নভেম্বর ২৩, ২০১৮