বাংলাদেশের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে জাপান

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
সফররত জাপানের অর্থনৈতিক পুনর্জাগরণ বিষয়ক মন্ত্রী তোশিমিতসু মোটেগি বলেছেন, তার দেশ বাংলাদেশের প্রধান উন্নয়ন ক্ষেত্র, বিশেষ করে রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে।
তিনি বলেন, ‘বিশেষ করে তথ্য প্রযুক্তি খাতে জাপান বিনিয়োগে আগ্রহী।’

বৈঠকের পরে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

তোশিমিতসু মোটেগি বলেন, বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর থেকেই জাপান বাংলাদেশের মহান উন্নয়ন সহযোগি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যার গোড়া পত্তন করেছিলেন।

জাপানের মন্ত্রী সাক্ষাতে সকলের অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের মাধ্যমে টানা তৃতীয় বারের মত প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করায় শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানান।

তিনি দৃঢ় আস্থা ব্যক্ত করেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের চলমান মেয়াদে বাংলাদেশ এবং জাপানের সম্পর্ক আরো শক্তিশালী হবে।

জাপানের মন্ত্রীকে বাংলাদেশে স্বাগত জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, জাপান বাংলাদেশের পুরনো বন্ধু হিসেবে বিভিন্ন মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নে সহযোগিতা করে যাচ্ছে।

জাপান বাংলাদেশের জন্য উন্নয়নের মডেল, বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে জাপানের অবদানের কথা স্মরণ করেন এবং প্রতিটি গ্রামকে শহরের নাগরিক সুবিধা দিয়ে গড়ে তোলায় তাঁর সরকারের বিভিন্ন উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপও তুলে ধরেন।

প্রধানমন্ত্রী আইটি পার্কগুলোতে তথ্য প্রযুক্তির প্রশিক্ষণ এবং গভীর সমুদ্রে মৎস আহরণের জন্য জাপানের সহযোগিতা জন্য প্রস্তাব করেন। তিনি বাংলাদেশ থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সেবিকা নেয়ার জন্য জাপানের মন্ত্রীর প্রতি আহবান জানালে জাপানের মন্ত্রী ও এ ব্যাপারে ইতিবাচক সাড়া দেন, জানান প্রেস সচিব।

শেখ হাসিনা বৈঠকে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে তাঁর সরকারের দৃঢ় অবস্থানের পুনরোল্লেখ করে বলেন, বাংলাদেশ সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদের বিষয়ে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে।

জাপানের মন্ত্রী এ সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর পরিদর্শনকালিন অভিজ্ঞতা বিনিময়কালে বলেন, এই মহান নেতার বিভিন্ন স্মৃতি এবং তথ্যাদি দেখে তিনি হতবিহবল হয়ে পড়েছিলেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা ড. গওহর রিজভী এবং মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান এ সময় উপস্থিত ছিলেন। সূত্র: বাসস

নিউজবিডি৭১/এম কে/ জানুয়ারি ১৫, ২০১৯




সংলাপ নয়, শুভেচ্ছা জানাতে গণভবনে আমন্ত্রণ : সেতুমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
সংলাপের জন্য নয়, নির্বাচন পরবর্তী শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য সব দলগুলোকে প্রধানমন্ত্রী আবারও গণভবনে ডাকবেন বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আজ সোমবার রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত বর্ধিত সভায় এ কথা বলেন ওবায়দুল কাদের। সরকারের মধ্যে দল যেন হারিয়ে না যায় সেজন্য সাংগঠনিক দুর্বলতা দূর করতেও তাগিদ দেন সেতুমন্ত্রী।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিশাল বিজয় উপলক্ষে ১৯ জানুয়ারি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিজয় সমাবেশ করবে আওয়ামী লীগ। আর তা সফল করতেই সোমবার বিকালে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজন করে এই বর্ধিত সভা। যেখানে সমাবেশের দিন নেতা-কর্মীরা কীভাবে দায়িত্ব পালন করবেন সে বিষয়ে দিক নির্দেশনা দেন দলের কেন্দ্রীয় ও মহানগড়ের নেতারা। আর দলের সাধারন সম্পাদকের বক্তব্যে উঠে আসে সাম্প্রতিক রাজনীতির নানা প্রসঙ্গ।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘কোনো কোনো মিডিয়ায় দেখছি যে একটা সংলাপ হতে যাচ্ছে! আবারও একটা সংলাপ! এখন কেন সংলাপ? সংলাপ নয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা গণভবনে আমন্ত্রণ জানাতে চান নির্বাচন পরবর্তী শুভেচ্ছা বিনিময়ের জন্য।’

পাশাপাশি নির্বাচনে এত বড় বিজয়ের পর, অন্ত:কোন্দল দূর করে দলকে সংগঠিত করতে নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘আজকে আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ সরকারের মধ্যে দলটা যেন হারিয়ে না যায়। আওয়ামী লীগের ভবিষ্যৎ বিজয় যদি আপনারা চান তাহলে ভেতরের দূর্বলতা কাটিয়ে উঠতে হবে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা এখন শাক দিয়ে মাছ ঢাকতে পারি না। আমরাও জানি আমাদের ভেতরে কিছু সমস্যা আছে। এ সমস্যাগুলো অনতিক্রম্য নয়। এগুলো অতিক্রম করা যায়।’

যে জনগন ভোট দিয়ে আওয়ামী লীগকে সরকারে বসিয়েছে তাদের সাথে কখনোই ক্ষমতার দাপট না দেখিয়ে বিনয়ী হবারও আহ্বান জানান ওবায়দুল কাদের।

বার্তা সংস্থা বাসস জানায়, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হাসনাতের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপুমনি, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র সাঈদ খোকন।

সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ।

সভায় অন্যান্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক, শিক্ষা উপমন্ত্রী ও সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল ও বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুস সবুর উপস্থিত ছিলেন।

নিউজবিডি৭১/এম কে/ জানুয়ারি ১৫, ২০১৯




আ.লীগের নারী আসনে ফরম বিক্রি শুরু

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ একাদশ সংসদ নির্বাচনে সংরক্ষিত নারী আসনের জন্য মনোনয়নপত্রের ফরম বিক্রি শুরু করেছে।

মঙ্গলবার সকাল ১০টায় ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র ফরম বিক্রির কার্যক্রম উদ্বোধন করেন দলটির সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

ঢাকা দক্ষিণ মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী নার্গিস রহমানকে ফরম দেয়ার মাধ্যমে এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করা হয়। ফরম বাবদ জনপ্রতি ৩০ হাজার টাকা করে নেয়া হচ্ছে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক ও পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম, দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ, সদস্য এস এম কামাল, উপ-দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া উপস্থিত ছিলেন।

ফরম বিতরণের আগে সকাল ৯টা থেকে বাইরে লম্বা লাইন ধরে দাঁড়িয়ে থাকেন প্রার্থীরা। ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয় থেকে ঢাকা, রাজশাহী, বরিশাল ও ময়মনসিংহ বিভাগের ফরম বিতরণ করা হচ্ছে। অন্যদিকে চট্টগ্রাম, রংপুর, খুলনা ও সিলেট বিভাগের ফরম বিক্রি করা হচ্ছে পাশের নতুন ভবনে।

গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৫৯ আসনে জয়লাভ করে সরকার গঠন করেছে। ফলে একাদশ জাতীয় সংসদে তারা ৪৩টি আসনে সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য দিতে পারবে।

নিউজবিডি৭১/এম কে/ জানুয়ারি ১৫, ২০১৯




প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিশ্ব নেতৃবৃন্দের অভিনন্দন অব্যাহত

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
চতুর্থবারের মত বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হওয়ায় ব্রুনাই’র সুলতান ও আফগান প্রেসিডেন্টসহ বিশ্ব নেতৃবৃন্দ প্রধানমন্ত্রী

ব্রুনাই’র সুলতান হাজী হাসানাল বলকিয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এক অভিনন্দন বার্তায় বলেন, “পুনরায় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ায় আপনাকে উষ্ণ অভিনন্দন বার্তা পাঠাতে পেরে আমি আনন্দিত।”

তিনি আরো বলেন, “আমি নতুন মেয়াদে আপনার সার্বিক সাফল্য কামনা করছি এবং দুটি দেশ ও দেশের জনগণের স্বার্থে ব্রুনাই’র সুলতান প্রধানমন্ত্রীর সুস্বাস্থ্য ও কল্যাণ এবং বাংলাদেশের জনগনের উন্নতি ও সমৃদ্ধি কামনা করেন।

আফগান প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আশরাফ গনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পাঠানো বার্তায় বলেন, “প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করায় আফগানিস্তানের জনগণ ও আমার পক্ষ থেকে আপনাকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি।”

আফগান প্রেসিডেন্ট প্রধানমন্ত্রীর সুস্বাস্থ্য ও সাফল্য এবং বাংলাদেশের জনগণের উন্নতি ও সমৃদ্ধি কামনা করেন। সূত্র: বাসস

নিউজবিডি৭১/এম কে/ জানুয়ারি ১৫, ২০১৯




কোচিং বাণিজ্য বন্ধসহ ৫ নির্দেশনা শিক্ষামন্ত্রীর

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
দেশে শিক্ষার মান উন্নয়নে পাঁচটি বড় সমস্যা চিহ্নিত করে সেগুলো দূর করার নির্দেশনা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। সমস্যাগুলো হচ্ছে- পাঠ্যপুস্তকের কারিকুলাম পরিবর্তন, প্রশ্নফাঁস রোধ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, শিক্ষা প্রশাসন কার্যকর ও কোচিং বাণিজ্য।

সোমবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ বিভাগের আট উইং প্রধানদের সঙ্গে সার্বিক কার্যক্রম পর্যালোচনা সভায় কর্মকর্তাদের এ নির্দেশনা দেন মন্ত্রী। এ সময় মাদরাসা ও কারিগরি বিভাগের উপমন্ত্রী মহিবুর হাসান চৌধুরী নওফেল উপস্থিত ছিলেন।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জনগণের ভোগান্তি ও সমস্যা নিরসনে পদক্ষেপ নেয়াই হবে আমাদের সরকারের অগ্রাধিকার। তাই এসব বেআইনি কাজ বন্ধে পদক্ষেপ নিতে হবে। এ ক্ষেত্রেই শুধু নয়, সব ধরনের সমস্যা সমাধানে শিক্ষা প্রশাসনকে আরও কার্যকর হতে হবে।

সভাশেষে উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল সাংবাদিকদের বলেন, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা আমরা বিশ্বাস করি, তাই বিগত দিনে শিক্ষাখাতে সব উন্নয়নে যে ধারা ছিল তা বজায় রাখা হবে। বিদ্যমান সমস্যাগুলো দ্রুত সমাধান করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পাশাপাশি আমাদের দায়িত্ববোধ সর্ম্পকে অবগত থাকতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন সাংবাদিকদের বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সার্বিক কার্যক্রম মন্ত্রীর কাছে তুলে ধরা হয়েছে। পাশাপাশি প্রশ্ন ফাঁসসহ বর্তমান সঙ্কটগুলো নিয়েও আলোচনা হয়েছে। দ্রুত এসব সমস্যা লাঘর করে শিক্ষা প্রশাসনকে আরও কার্যকর করার নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

সচিব বলেন, আমাদের সন্তানদের জন্য পাঠ্যপুস্তকের কারিকুলাম পরিবর্তনের আলোচনা হয়েছে। তাই নতুন কারিকুলাম তৈরির জন্য বলা হয়েছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন খাতের নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায় করা হচ্ছে। এটিকে একটি নির্দিষ্ট পর্যায়ে কীভাবে আনা সম্ভব হয় সে বিষয়েও আমরা আলোচনা করেছি।

নিউজবিডি৭১/এম কে/ জানুয়ারি ১৫, ২০১৯




‘নিয়ম অমান্য করে কেউ ভবন নির্মাণ করতে পারবে না’

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
নিয়ম অমান্য করে কেউ ঢাকা শহরে ভবন নির্মাণ করতে পারবে না বলে মন্তব্য করেছেন গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

নিজ দফতরে এক ব্রিফিংয়ে তিনি সোমবার এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘রাজধানী ঢাকায় কতগুলো ঝুঁকিপূর্ণ ভবন আছে সেগুলোর তথ্য হালনাগাদ করা হবে। এরপর ঝুঁকিপূর্ণ ভবন অপসারণ করতে মালিকদের চিঠি দেওয়া হবে। তারপরও ঝুঁকিপূর্ণ ভবন অপসারণ করা হলে রাজউক ব্যবস্থা নেবে।

শ ম রেজাউল করিম বলেন, ‘বিভিন্ন আইনি জটিলতায় গৃহায়ণ ও গণপূর্তকে বর্তমানে আট হাজার মামলা লড়তে হচ্ছে। আমরা আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে মামলাগুলো দ্রুত নিষ্পত্তির উদ্যোগ নেব।’

গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা বেআইনি কিছু করব না। আইনের ঠুনকো অজুহাতে কেউ বেআইনি কাজ করবে তা হতে দেব না। আমি আইনের লোক।’

তিনি বলেন, ‘আমরা ওয়ানস্টপ সার্ভিস চালু করব। জালিয়াতি বন্ধের জন্য কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে। রাজউকের সঙ্গে ১১টি প্রতিষ্ঠান সমন্বয় করে কাজ করে তারা যাতে দুর্নীতি করতে না পারে সে জন্য আমরা কঠোর ব্যবস্থা নেব।’

রাজধানীতে কী পরিমাণ ঝুঁকিপূর্ণ ভবন আছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তা এক মাস পর জানা যাবে। যত বড় নামিদামি ব্যক্তি হোক না কেন, তাদের ঝুঁকিপূর্ণ কোনো ভবন থাকলে তা ভেঙে ফেলা হবে।’

নিউজবিডি৭১/এম কে/ জানুয়ারি ১৪, ২০১৯




১৯ জানুয়ারি ভিটামিন ‘এ’প্লাস ক্যাম্পেইন

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
১৯ জানুয়ারি দেশজুড়ে পালিত হবে ভিটামিন ‘এ’প্লাস ক্যাম্পেইন। সেদিন ৬ মাস থেকে ৫৯ মাস বয়সী সব শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। সোমবার ( ১৪ জানুয়ারি) ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে আসন্ন জাতীয় এ প্লাস ক্যাম্পেইন (২য় রাউন্ড) এর কেন্দ্রীয় অ্যাডভোকেসি সভায় এ কথা জানানো হয়।

ডিএসসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (ডা.) শেখ সালাহ্উদ্দিনের সভাপতিত্বে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সালাহ্‌উদ্দিন বলেন, সাধারণত বছরে দুইবার জুন ও ডিসেম্বর মাসে ভিটামিন-এ ক্যাম্পেইন পরিচালনা করা হয়। তবে নির্বাচনের কারণে গত বছরের ২য় রাউন্ডের ক্যাম্পেইন এ বছর জানুয়ারি মাসে পরিচালনা করা হবে।

ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন ও জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠানের যৌথ উদ্যোগে অনুষ্ঠিত এই ভিটামিন এ প্লাস ক্যাম্পেইনে এ বছর ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন থেকে ৬-১১ মাস বয়সী প্রায় ৪৭ হাজার শিশু ও ১২-৫৯ মাস বয়সী সোয়া তিন লাখ শিশুকে ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

ডিএসসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বলেন, ১৯ তারিখ সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ডিএসসিসির ১ হাজার ৪৮৭টি স্থায়ী ও অস্থায়ী কেন্দ্রে শিশুদের ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। এই ক্যাম্পেইনে কাজ করবেন প্রায় তিন হাজার স্বেচ্ছাসেবক।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন জনস্বাস্থ্য পুষ্টি প্রতিষ্ঠানের উপ-পরিচালক ড. মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, ‘ভিটামিন এ ক্যাম্পেইনের লক্ষ্য শুধু শিশুদের ভিটামিন এ ক্যাপসুল খাওয়ানো নয় বরং শিশুর দেহে ভিটামিন এ’র প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে অভিভাবকদের সচেতন করা।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভিটামিন এ ঘাটতি পূরণ করার মাধ্যমে শিশু মৃত্যুর হার ২৩ শতাংশ পর্যন্ত কমানো সম্ভব।’

প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (ডা.) শেখ সালাহ্উদ্দিন বলেন, ভিটামিন এ ক্যাম্পেইনে গত বারের অর্জন ৮৭ শতাংশ। গ্রাম অঞ্চলের মানুষের কাছে এই ক্যম্পেইন সহজে পৌঁছালেও শোহরে এটি পুরোপুরি সফল করা যাচ্ছে না উল্লেখ করে তিনি জানান, শহর অঞ্চলে বাবা মায়েদের ভিটামিন এ ক্যাপসুল গ্রহণ সম্পর্কে উদাসীনতা রয়েছে। এই বিষয়ে ছড়ানো গুজবও ভিটামিন এ ক্যাপসুল গ্রহণে বিরূপ ভূমিকা রাখে।

তিনি বলেন, মারাত্মক অসুস্থ ছাড়া ৫ থেকে ৫৯ মাস বয়সী যে কোনো শিশু ভিটামিন এ ক্যাপসুল খেতে পারবে। তিনি শিশুদের ভরপেটে ক্যাপসুল খাওয়ানোর পরামর্শ দেন এবং বলেন, ‘যদি কোনো শিশু মারাত্মক অসুস্থ বোধ করে তবে সিটি কর্পোরেশোনের কন্ট্রোলরুম ৯৫৫৬০১৪ নাম্বারে ফোন দিয়ে জানাতে হবে।’

নিউজবিডি৭১/এম কে/ জানুয়ারি ১৪, ২০১৯




জানুয়ারির মধ্যে নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নের প্রজ্ঞাপন : তথ্যমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
সাংবাদিকদের জন্য আবাসন ব্যবস্থা ও ২৮ জানুয়ারির মধ্যে নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নের প্রজ্ঞাপন জারির ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসান মাহমুদ। তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের নির্বাচনি প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সাংবাদিকদের জন্য আবাসনের ব্যবস্থা নেওয়ার পাশাপাশি আগামী ২৮ জানুয়ারির মধ্যে নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়নের প্রজ্ঞাপন জারির ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’

সোমবার দুপুরে প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত সৌজন্য সাক্ষাৎ ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘২৮ জানুয়ারি মধ্যে গেজেট করতে হলে এই সময়ের মধ্যে যা যা করণীয় সে বিষয়ে আলোচনা হবে। এছাড়া, আওয়ামী লীগের ইশতেহার অনুযায়ী সাংবাদিকদের আবাসন ব্যবস্থা নিয়ে মন্ত্রণালয়ের সমন্বয় সভায় আলোচনা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী গণমাধ্যম ও সাংবাদিক বান্ধব। সারাজীবন আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে লি‌খে‌ছে এমন সাংবাদিক তাদের প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর সহযোগিতা পেয়েছেন এবং ভবিষ্যতেও পাবেন।’

তি‌নি আরও ব‌লেন, ‘তথ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাওয়ার পর আমি মনে করি আমার প্রধান কাজ হলো সাংবাদিক বন্ধুদের কল্যাণ সাধন করা। বাংলাদেশে অনেক ভালো সংবাদমাধ্যম নানা কারণে বন্ধের পথে, সেগুলোকে কিভাবে রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে সহায়তা করা যায় সে বিষ‌য়েও দেখা হবে। যাতে ভালো সংবাদ মাধ্যম হারিয়ে না যায় সে জন্য এরইমধ্যে আলোচনা হচ্ছে।’

হলুদ সাংবাদিকতার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সাংবাদিকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সব সাংবাদিক চেষ্টা করে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশ করতে। কিন্তু দু’একজনের ভুলের জন্য কমিউনিটির বদনাম হতে পারে না। সেজন্য আমি মনে করি এ বিষয়ে সাংবাদিক ইউনিয়নের দায়িত্ব কম নয়।’

সংবাদমাধ্যমকে রাষ্ট্রের চতুর্থ অঙ্গ মন্তব্য ক‌রে মন্ত্রী ব‌লেন, ‘সংবাদমাধ্যমের সাথে যদি রাষ্ট্রের উন্নতিকরণের কাজ না হয়, তাহলে রাষ্ট্র ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সুতরাং আপনাদের সাথে সম্মিলিতভাবে কাজ করাই মূল লক্ষ্য আমা‌দের। আপনাদের যদি কোনো অভাব অভিযোগ থাকে আমাকে সরাসরি বলবেন।’

তথ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাওয়ার পিছনে সাংবাদিকদের অবদানের কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘এখন আপনাদের সহযোগিতা আরও বে‌শি চাই।’

বিএফইউ‌জের সভাপ‌তি মোল্লা জালাল এর সভাপ‌তি‌ত্বে অনুষ্ঠা‌নে আরও উপ‌স্থিত ছি‌লেন, আওয়ামী লী‌গের উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, বিএফইউজের মহাস‌চিব শাবান মাহমুদ, ঢাকা সাংবা‌দিক ইউনিয়ন (ডিইউ‌জে) এর সভাপ‌তি আবু জাফর সূর্য, সাধারন সম্পাদক সো‌হেল হায়দার চৌধুরী, সহ সভাপ‌তি খন্দকার মোজা‌ম্মেল হক, যুগ্ম সম্পাদক আকতার হো‌সেন উপস্থিত ছিলেন।

নিউজবিডি৭১/এম কে/ জানুয়ারি ১৪, ২০১৯




দুর্নীতির বিরুদ্ধে আমাদের যুদ্ধ অব্যাহত থাকবে : প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতি বিরুদ্ধে তাঁর সরকারের কঠোর অবস্থানের কথা পুনর্ব্যক্ত করে বলেছেন, ‘দেশের

উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে এবং এর অর্জনসমূহ সমুন্নত রাখার জন্য সরকার তাঁর দুর্নীতি বিরোধী লড়াই অব্যাহত

রাখবে।’

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে চতুর্থবারের মতো পুনঃনির্বাচিত হওয়ার পর আজ রোববার পিএমও অফিসে তাঁর প্রথম কর্মদিবসে

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের (পিএমও) সিনিয়র কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি বলেন, ‘যদিও কোন দেশের পক্ষেই

শতভাগ দুর্নীতি নির্মূল করা সম্ভব নয়, তবে আমাদের সরকারের একটা দায়িত্ব হলো এই দুর্নীতি প্রতিরোধ করা যাতে এটি

দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত করতে না পারে এবং আমাদের সকল সাফল্য ম্লান করে না দেয়।’

প্রধানমন্ত্রী জোর দিয়ে বলেন, ‘সন্ত্রাসবাদ, দুর্নীতি ও মাদক নির্মূলের ক্ষেত্রে আমাদের যুদ্ধ অব্যাহত থাকবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘টেন্ডার ছিনতাইয়ের ঘটনা দেশে বারবার ঘটেছে। কিন্তু আমরা দেশকে এই অবস্থা থেকে মুক্ত

করতে পেরেছি। প্রযুক্তির বদৌলতে এই সাফল্য এসেছে এবং এটা ডিজিটাল বাংলাদেশের একটা ভাল ফল।’

প্রধানমন্ত্রী সরকারি কর্মকর্তাদের দেশের উন্নয়নের জন্য কঠোর পরিশ্রম করার আহবান জানিয়ে বলেন, ‘দেশের জনগণের

কল্যাণে সকল কর্মকর্তা ও কর্মচারীদেরকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে, যাতে জনগণ তার সুফল ভোগ করতে পারে।

আমরা দেশকে উন্নত ও সম্ভাবনাময় জাতিতে পরিণত করতে চাই। ইতিমধ্যে আমরা দেশকে উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি

লাভ করেছি। এটাকে অবশ্যই আমাদের ধরে রাখতে হবে।’

শেখ হাসিনা সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরকে সব সময় তাঁর সরকারকে সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘তাঁর

সরকার যখন ক্ষমতায় আসে তখন সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা সহযোগিতা করেন।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের সহযোগিতায় সকল প্রকার উন্নয়ন কাজ শেষ করতে চাই, যাতে

করে দেশ আরো এগিয়ে যাবে। দেশ সকল ক্ষেত্রে নিজস্ব সক্ষমতা অর্জন করতে চায়। বিশ্বের সাথে বাংলাদেশও শান্তি

বজায় রাখতে সচেষ্ট রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা আর অপরের উপর নির্ভরশীল থাকবো না। আমরা নিজের পায়ে দাঁড়াতে চাই।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আর যেন দেশে স্বাধীনতা বিরোধীরা ক্ষমতায় আসতে না পারে তার জন্য সকলকে সতর্ক থাকতে

হবে।’ তিনি বলেন, ‘আমরা চাই যে বা যারা দেশের ক্ষমতায় আসুক না কেন তারা মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ

করবে এবং উন্নয়নকে সামনের দিকে নিয়ে যাবে। বাংলাদেশের ব্যাপক উন্নয়নের কারণে বিশ্ববাসী আমাদের দেশকে

সম্মানের চোখে দেখে থাকে। কিন্তু এক সময় বাংলাদেশকে খরা, দুর্ভিক্ষ, বন্যার দেশ হিসাবে বিশ্বে পরিচিত লাভ

করেছিল। যা আমাদের কষ্ট দিতো । আর আমরা এটাকে সহ্য করতে চাই না।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সেই সময় থেকে আমি মনে করতাম আর কাউকে দেশকে খাটো করতে দিব না। মহান মুক্তিযুদ্ধের

মাধ্যমে দেশ স্বাধীন করেছি তাই সব সময় মাথা উচু করে থাকতে চাই।’

নিউজবিডি৭১/এম কে/ জানুয়ারি ১৪, ২০১৯

দুর্নীতির বিরুদ্ধে আমাদের যুদ্ধ অব্যাহত থাকবে : প্রধানমন্ত্রী




নির্বাচনী প্রচারণায় সহিংসতা এর পুনরাবৃত্তি কিনা তা খতিয়ে দেখতে হবে : সিইসি

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদা বলেছেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির সহিংসতার কথা ভুলে গেলে চলবে না। নির্বাচনী প্রচারণায় সহিংসতা এর পুনরাবৃত্তি কিনা তা খতিয়ে দেখতে হবে।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে নির্বাচন ভবনের অডিটরিয়ামে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সারা দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে করণীয় নির্ধারণে সশস্ত্র বাহিনীসহ সব বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে বৈঠকে এ নির্দেশ দেন সিইসি।

সিইসি বলেন, নির্বাচনী প্রচারের সময় সহিংসতার ঘটনা ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির পুনরাবৃত্তির পাঁয়তারা কিনা তা খতিয়ে দেখতে হবে। ৫ জানুয়ারির কথা ভুলে গেলে চলবে না। এসব সহিংসতার ঘটনা তৃতীয় কোনো শক্তির উত্থানের আলামত কিনা তাও খতিয়ে দেখার জন্য সব গোয়েন্দা সংস্থাকে নির্দেশ দেন তিনি।

প্রধান নির্বাচন কমিশনারের সভাপতিত্বে বৈঠকে চার নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী এবং ইসি সচিব সচিব হেলালুদ্দীন আহমদসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অন্যদিকে জনপ্রশাসন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পুলিশ, র‌্যাব, আনসার, গ্রামপুলিশ, কোস্টগার্ড, আনসার বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর প্রতিনিধিরা বৈঠকে অংশ নেন।

আগামী ৩০ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে কোন বাহিনীর কতসংখ্যক ফোর্স, কতদিনের জন্য নিয়োজিত করা হবে, সেটি নির্ধারণ হবে এ বৈঠকে।

নিউজবিডি৭১/আ/ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮




আওয়ামী লীগ সরকার আবার ক্ষমতায় না ফিরলে পদ্মা সেতু হবে না : প্রধানমন্ত্রী

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা :
আওয়ামী লীগ সরকার আবার ক্ষমতায় না ফিরলে পদ্মা সেতু হবে না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে নৌকায় ভোট দিন।

আজ বৃহস্পতিবার ফরিদপুরের কোমরপুর আব্দুল আজিজ ইনস্টিটিউশন মাঠে আয়োজিত জনসভায় প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নত ও সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবে গড়ে তোলা হবে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আর একবার আমাদের সেবা করার সুযোগ দেন তাহলে আমরা তা করতে পারবো।’

তিনি বলেন, ‘দেশকে আমরা উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। এই গতি যেন সচল থাকে। এটাই আপনাদের কাছে চাওয়া।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যখন সরকারে এসেছি তখনই দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। ২০২১ সালের মধ্যে প্রতিটি ঘরে ঘরে আলো জ্বালাব। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী পালন করব। ২০২০ সালে জাতির পিতা জন্ম শতবার্ষিকী পালন করব।’

সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান চলবে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের অভিযান অব্যাহত আছে। অব্যাহত থাকবে। এই ক্ষেত্রে আপনাদের সহযোগিতা চাই। মাদক একটা পরিবার নষ্ট করে দেয়। যুবকদের জীবনকে ধ্বংস করে দেয়। সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদক রুখতে আপনাদের সহযোগিতা প্রয়োজন। মানুষ যেন জঙ্গিবাদ ও মাদক থেকে দূরে থাকে এ জন্য আপনারা কাজ করবেন।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের তরুণ সমাজকে দেশ গড়ায় কাজে লাগাতে চাই। তরুণ সমাজের ভাগ্য পরিবর্তনে আমরা পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘আজ বাংলাদেশে খাদ্যের অভাব নেই। শুধু খাদ্য নয় আমরা পুষ্টির ব্যবস্থাও করেছি। কমিউনিটি ক্লিনিক করে দিয়েছি। বিনা পয়সায় ৩৩ প্রকারের ওষুধ দিচ্ছি। এক কোটি চল্লিশ লাখ মা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তার সন্তানের উপবৃত্তির টাকা পাচ্ছেন।’

নিউজবিডি৭১/আ/ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮




সব ক্ষেত্রে মেয়েদের সুযোগ দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,  মেয়েদের সব ক্ষেত্রে সুযোগ দিতে হবে । তারা যেন আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হতে পারে। তাহলে পরিবারেও তাদের গুরুত্ব বাড়বে।

তিনি আরও বলেন, মেয়েদের অধিকার আদায় করে নিতে হবে। পাশাপাশি তাদের মধ্যে পরিমিবোধও বাড়াতে হবে। অধিকার আদায় করতে গিয়ে পারিবারিক ঝামেলা যেন না সৃষ্টি হয়।

আজ রোববার সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে রোকেয়া দিবস উপলক্ষে পদক বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একথা বলেন।

মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয় প্রতিবছর বেগম রেকেয়া দিবসে পদক বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আসছে।

এ বছরে বেগম রোকেয়া পুরস্কার পেলেন- সাবেক মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী জিন্নাতুনন্নেসা তালুকদার, প্রফেসর জোগরা আনিস, শীলা রায়, রমা চৌধুরী (মরনোত্তর) ও রোকেয়া বেগম।

পদকপ্রাপ্তদের প্রত্যেককে ২৫ গ্রাম স্বর্ণের পদক, একটি সার্টিফিকেট ও দুই লাখ করে টাকা দেয়া হয়।

বাংলার নারী জাগরণের অগ্রদূত বেগম রোকেয়ার জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে প্রতি বছর এ দিন সারাদেশে সরকারিভাবে রোকেয়া দিবস পালন করা হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথেই নারী শিক্ষাকে গুরুত্ব দিচ্ছে বর্তমান সরকার। রোকেয়ার আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে নিজেদের উন্নয়নের মূল স্রোতধারায় সম্পৃক্ত করার মাধ্যমে এদেশের নারীসমাজ জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে ভূমিকা রাখবে।

তিনি বলেন, সন্তানের পরিচয়ে মায়ের নাম আমরাই প্রথম অন্তর্ভুক্ত করেছি। মা জন্ম দেন। মা-ই বোঝেন সন্তান জন্ম দেওয়ার কষ্ট। নারীরা অনেক কষ্টসহিষ্ণু। পুরুষদের গড় আয়ু বর্তমানে ৭১, নারীর ৭৩, গড় ৭২। এ থেকেও স্পষ্ট হয় নারী বেশি কষ্টসহিষ্ণু।

প্রধানন্ত্রী বলেন, নারী নেতৃত্বকে এগিয়ে নিয়েছে আমাদের উপমহাদেশের নারীরাই। আমরাই প্রথম প্রশাসনের সর্বোচ্চ পর্যায়েও নারীদের অধিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী বেগম রোকেয়ার আদর্শে উজ্জীবিত হয়ে উন্নয়নের মূল স্রোতধারায় নিজেদের সম্পৃক্ত করার জন্য দেশের নারীসমাজের প্রতি আহ্বান জানান।

নিউজবিডি৭১/আ/ডিসেম্বর ৯ , ২০১৮