৭০ বছরে পদার্পণ করল আওয়ামী লীগ

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : ২৩ জুন শনিবার। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ১৯৪৯ সালে পুরনো ঢাকার ঐতিহ্যবাহী রোজ গার্ডেনে প্রতিষ্ঠিত মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্ব দানকারী দলটি ৭০ বছরে পদার্পণ করল ।

১৯৪৯ সালের এদিনে প্রতিষ্ঠিত এ দলটি বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধসহ প্রতিটি গণতান্ত্রিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়ে এদেশের গণমানুষের সংগঠনে পরিণত হয়।
এ বিশেষ দিনটির সঙ্গে এবার যোগ হতে চলেছে একটি নতুন মাত্রা। আজ উদ্বোধন হবে দলটির ১০তলা সুরম্য নিজস্ব কার্যালয়ের। নবনির্মিত এই কার্যালয় ভবন উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।

দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালন উপলক্ষে আওয়ামী লীগ বিশেষ কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে সকাল ৯ টায় ধানমন্ডিস্থ বঙ্গবন্ধু ভবন প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য নিবেদন, সকাল ১০টায় ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন এবং সংগঠনের নবনির্মিত কার্যালয় ভবন উদ্বোধন।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলির সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘আওয়ামী লীগ শুধু দেশের পুরনো ও সর্ববৃহৎ রাজনৈতিক দলই নয়, এটি হচ্ছে গণতন্ত্র ও অসাম্প্রদায়িক ভাবাদর্শের মূলধারাও। প্রতিষ্ঠা থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত নানা আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগ আমাদের সমাজ-রাজনীতির এ ধারাকে নিরবচ্ছিন্নভাবে এগিয়ে নিচ্ছে।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দেশের অন্যতম পুরনো, অসাম্প্রদায়িক, সর্ববৃহৎ ও বাঙালির জাতীয় মুক্তির সংগ্রামে নেতৃত্বদানকারী রাজনৈতিক দল। আর অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের গড়ার কাজ প্রথম শুরু করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।’

জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এ দলটিকে দেশের অন্যতম প্রাচীন সংগঠন হিসেবে আখ্যায়িত করে বলেন, ‘ভাষা, স্বাধীকার, গণতন্ত্র ও স্বাধীনতা অর্জনে মহোত্তম গৌরবে অভিষিক্ত আওয়ামী লীগের সাত দশকের অভিযাত্রায় শান্তি, সমৃদ্ধি ও দিন বদলের লক্ষ্যে অবিচল বাঙালি জাতির মুক্তির দিশারি।’

ইতিহাসবিদ, লেখক ও লোক সাহিত্যিক শামসুজ্জামান খান এই দলকে মূল্যায়ন করে বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ ‘পাকিস্তান’ নামের অবৈজ্ঞানিক এবং ভৌগোলিক ও নৃতাত্ত্বিকভাবে এক উদ্ভট রাষ্ট্রের পূর্ব বাংলার বাঙালি জনগোষ্ঠী ও অন্যান্য ক্ষুদ্র জাতিসত্তাকে অবজ্ঞায়, অবহেলায় ও ঔপনিবেশিক কায়দায় শোষণ-পীড়ন-দমন ও ‘দাবিয়ে রাখা’র বিরুদ্ধে লাগাতার প্রতিবাদ, প্রতিরোধ এবং গণসংগ্রামের মধ্যদিয়ে গড়ে ওঠা বিপুল জনপ্রিয় একটি রাজনৈতিক দল। এই দলের নেতা-কর্মীদের ত্যাগ-তিতিক্ষা ও অঙ্গীকারদীপ্ত সংগ্রামী ভূমিকা ইতিহাসবিদিত।’

বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. বিনায়ক সেন বলেন, ‘এ দলটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিকে সফলতার নতুন পথ দেখিয়েছেন, দেশের টাকায় পদ্মাসেতু নির্মাণ শুরু করার সুবাদে বাংলাদেশের মর্যাদা আন্তর্জাতিকভাবে সৃষ্টি করেছে এবং আমরা মর্যাদাশীল জাতিতে রূপান্তরিত হয়েছি।’

পুরনো ঢাকার ঐতিহ্যবাহী রোজ গার্ডেনে আওয়ামী মুসলিম লীগ নামে এই দলের আত্মপ্রকাশ ঘটলেও পরে শুধু আওয়ামী লীগ নাম নিয়ে অসাম্প্রদায়িক সংগঠন হিসেবে বিকাশ লাভ করে।
প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এ দেশে পাকিস্তানি সামরিক শাসন, জুলুম, অত্যাচার-নির্যাতন ও শোষণের বিরুদ্ধে সকল আন্দোলন-সংগ্রামে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছে এ দলটি।

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, আইয়ুবের সামরিক শাসন-বিরোধী আন্দোলন, ১৯৬৪ সালের দাঙ্গার পর সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি প্রতিষ্ঠা, ১৯৬৬ সালের ছয় দফা আন্দোলন ও ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের পথ বেয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের ২৪ বছরের আপোষহীন সংগ্রাম-লড়াই এবং ১৯৭১ সালের নয় মাসের মুক্তিযুদ্ধ তথা সশস্ত্র জনযুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা লাভ করে।

ওই বছরের ১৬ ডিসেম্বর চূড়ান্ত বিজয় অর্জনের মধ্যদিয়ে প্রতিষ্ঠিত হয় বাঙালির হাজার বছরের লালিত স্বপ্নের ফসল স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ।

পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগকে ইতিহাস থেকে মুছে ফেলার ব্যর্থ চেষ্টা হলেও দীর্ঘ একুশ বছর লড়াই সংগ্রামের মাধ্যমে ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে দলটির প্রধান শেখ হাসিনার নেতৃত্বে জয়ী হয়ে ২৩ জুন আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ফিরে আসে। ২০০১ এবং ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারির পর আর এক দফা বিপর্যয় কাটিয়ে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নির্বাচনে তিন-চতুর্থাংশ আসনে বিজয়ী হয়ে আবারো রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব পায় এই দলটি। পরবর্তীতে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির সাধারন নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসে টানা দুই মেয়াদে সরকার পরিচালনা করছে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী গতকাল শুক্রবার এক বিবৃতিতে দলের গৌরবোজ্জ্বল ৬৯ বছর পূর্তিতে গৃহিত কর্মসূচি পালনের জন্য আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের সব জেলা, উপজেলাসহ সকল স্তরের নেতা-কর্মী, সমর্থকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

নিউজবিডি৭১/আ/২৩ জুন ,২০১৮




‘দলের ইমেজ ড্যামেজ করবেন না’ : সেতুমন্ত্রী

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নিজেদের মধ্যে অসুস্থ প্রতিযোগিতা করে দলের ইমেজ ড্যামেজ করবেন না, দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করবেন না।

শনিবার আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের উদ্দেশে তিনি একথা বলেন।বেলা ১১টায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে এ সভা শুরু হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এসময় তিনি বলেন, প্রার্থী হওয়ার যোগ্যতা থাকলে অবশ্যই হবেন। আপনাদের এসিআর জমা আছে। দলীয় সভাপতির হাতে ছয় মাস পরপর এসিআর আসছে। শিগগিরই আরেকটি জরিপ রিপোর্ট আসবে। দল হোক বা জোট হোক আমরা জনগণের কাছে গ্রহণযোগ্য ও উইনেবল প্রার্থী মনোনয়ন দেবো।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশ, মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতাকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। বাংলাদেশ এখন আর ভিখারির দেশ নয়, মর্যাদার দেশ। ডিসেম্বরে বাংলাদেশে আওয়ামী লীগ আরেকটি বিজয় ছিনিয়ে আনবে। ঐক্যবদ্ধ অওয়ামী লীগকে কেউ ঠেকাতে পারবে না।

সভায় আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটি, প্রেসিডিয়াম, উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, সংসদ সদস্য, বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও বিভিন্ন জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়নের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক ও দফতর সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন।

নিউজবিডি৭১/আ/২৩ জুন ,২০১৮




নির্বাচনে আ. লীগের অবস্থান ভালো, আশা করি জয়ী হবে : এরশাদ

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : আসন্ন সিটি করপোরেশন নির্বাচন প্রসঙ্গে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, নির্বাচনে আওয়ামী লীগের অবস্থান ভালো। আশা করি তারা জয়ী হবে। কমিশন বারবার বলছে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে। তবে নির্বাচন না হওয়া পর্যন্ত কিছু বলা যাবে না। আশা করছি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে।

শুক্রবার দুপুরে রংপুর সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এসব কথা বলেন।

সারাদেশে চলমান মাদকবিরোধী অভিযান প্রসঙ্গে জাপা চেয়ারম্যান বলেন, রাজপ্রাসাদ সব খালি, রাজারা নেই। কারা মাদক ব্যবসা করে সেটা সবাই জানে, কিন্তু তারা এখানে নেই। এখন চুনোপুঁটিদের মারা হচ্ছে।

এ সময় সরকারের সহযোগী হয়েও তাদের বিরুদ্ধে কেন কথা বলেন? সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে এরশাদ বলেন, আমরা তো বিরোধী দলের। সরকারের বিরুদ্ধে কথা বলাই তো আমাদের কাজ। তবে যে অভিযান শুরু হয়েছে তা সফল হোক, আমরা তাই চাই। মাদক দমন করা প্রয়োজন।

তিনি আরও বলেন, মাদক আমাদের সমাজকে ধ্বংস করে দিয়েছে। তাই অভিযানে কিছু লোক যদি মারাও যায়, সেটা গ্রহণ করা উচিত সকলের। তবে বিনা বিচারের মৃত্যু আমি সমর্থন করি না।

আলাপকালে সাংবাদিকরা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা প্রসঙ্গে জানতে চাইলে এরশাদ বলেন, হাসপাতাল নির্ধারণ করে দেয়া ঠিক না। যেহেতু খালেদা জিয়ার স্বামী সেনাবাহিনীতে ছিলেন। খালেদা জিয়া সেনা পরিবারের একজন সদস্য হিসেবে সিএমএইচ-এ বা পিজিতেও যেতে পারেন। আমিও ৬ বছর জেলে ছিলাম। হাসপাতাল তো দূরের কথা, চিকিৎসকের মুখ পর্যন্ত দেখতে দেয়া হয়নি আমাকে। ওরা চেয়েছিল আমি যেন মরে যাই। আল্লাহ আমাকে রক্ষা করেছেন।

এ সময় জাতীয় পার্টির মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, প্রেসিডিয়াম সদস্য জিয়াউদ্দিন আহমদ বাবলু ও মেজর (অব) খালেদ আখতার, রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক এসএম ইয়াসির, জেলা জাপার সাধারণ সম্পাদক ফকরুজ্জামান জাহাঙ্গীর, যুগ্ম সম্পাদক হাজী আব্দুর রাজ্জাক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাফিউল ইসলাম শাফি, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি আব্দদুল বারী, শামিম সিদ্দিকী, প্রচার সম্পাদক মমিনুল ইসলাম রিপন ও স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে ঢাকা থেকে বিমানযোগে সৈয়দপুরে অবতরণ করেন এরশাদ। পরে সড়ক পথে রংপুর সার্কিট হাউসে এসে পৌঁছালে দলীয় নেতাকর্মীরা তাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান।

নিউজবিডি৭১/আর/ ২২ জুন , ২০১৮




তারেক রহমানের আয়ের উৎস জুয়া : দীপু মনি

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের আয়ের উৎস ‘জুয়া’ বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য ডা. দীপু মনি। ট্যাক্স খতিয়ানে দেয়া সম্পদের বিবরণে তারেক রহমান এমনটিই উল্লেখ করেছেন বলে জানান দীপু মনি।

বুধবার জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে দীপু মনি এমন কথা বলেন।

তিনি বলেন, তার স্ত্রী ও কন্যার সম্পদের যে পাহাড়, এর উৎস কি? এসব তো দেশের সম্পদ লুট ও দুর্নীতি করেই তৈরি। বিশ্বের বিভিন্ন দুর্নীতি বিরোধী সংস্থা যে রিপোর্ট দিয়েছে তাতে এসব দুর্নীতির তথ্য উঠে এসেছে। এসব সম্পদ আমি দেশে ফেরৎ আনার জন্য সরকারের কাছে অনুরোধ জানাই।

সাবেক এ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিএনপি এমনই একটি দল যার জন্ম অবৈধভাবে, ক্ষমতায়ও বিএনপি অবৈধভাবে এসেছে।

আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, তারেক রহমানের মতো একজন দুর্নীতিবাজকে দেশে ফিরিয়ে আনতে চাই। তার পাচার করা সম্পদ দেশের জনগণের, তাই তার সম্পদও দেশে ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিতে বন্ধু দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

খালেদা জিয়া প্রসঙ্গে দীপু মনি বলেন, তার দুর্নীতি আদালতে প্রমাণিত হওয়ায় তিনি দণ্ডিত আসামি। তার মুক্তির দাবিতে বিএনপি আন্দোলন করছে, নির্বাচনে অংশ গ্রহণের দাবি জানাচ্ছে, যা হাস্যকর। কেননা, বিএনপি অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসে তা বৈধ করেছে। অবৈধ সম্পদ বানিয়েছে, তা রক্ষা ও প্রতিষ্ঠিত করার জন্য আবারও ক্ষমতা দখল করতে চাইছে। দুর্নীতি করা ও তা রক্ষার জন্যই বিএনপির জন্ম এবং তাদের আন্দোলন সংগ্রাম।

আন্তর্জাতিক বিষয়ে ড. দীপু মনি বলেন, সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র বৈশ্বিক জলবায়ু অভিঘাতের ক্ষয়-ক্ষতিবিষয়ক আন্তর্জাতিক ফোরাম থেকে নিজেদের সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে। তারা অর্থ দিতে রাজি নয় বলে জানিয়েছে। তারা ইসরাইলের পক্ষ নিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের এ ঘোষণা আমাদের হতাশ করেছে। কথায় বলে ‘রাজায় রাজায় যুদ্ধ হয় উলুখাগড়ার প্রাণ যায়।’

মাদকের ভয়াবহতার বিষয়ে মিয়ানমারের সমালোচনা করে দীপু মনি বলেন, আমরা বহুবার মিয়ানমারের সঙ্গে আলোচনা করেছি। কিন্তু তারা তাতে কান দিচ্ছে না, সহযোগিতা করছে না। যার ফলে সে দেশ থেকে এখনো ইয়াবাসহ নানা ধরনের মাদক আসছে।

দীপু মনি বলেন, যে দেশের প্রধানমন্ত্রী (শেখ হাসিনা) দেশের উন্নয়নে নিবেদিত প্রাণ, দেশ প্রেমিক, সে দেশকে কেউ দাবায়ে রাখতে পারবে না

নিউজবিডি৭১/আ/২১ জুন ,২০১৮




৩ সিটিতে আ’ লীগের ১০ প্রার্থী

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : ঘোষিত তিন সিটি করপোরেশনেরনির্বাচনে মেয়র পদেপ্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়নপত্র নিয়েছেন ১০ জন। বুধবার (২০ জুন) রাত পর্যন্ত বরিশালে পাঁচজন, সিলেটে চারজন ও রাজশাহীতে একজন মনোনয়ন ফরম তুলেছেন।

রাজশাহী থেকে একমাত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন ফরম জমা দেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন। ওই সিটিতে আর কেউ মনোনয়ন ফরম তোলেননি। মনোনয়ন ফরম জমা দেওয়ার পর খায়রুজ্জামান গণমাধ্যমকে বলেন, ‘রাজশাহী মহানগর কমিটি বৈঠকের মাধ্যমে রেজ্যুলেশন করে আমাকে একক প্রার্থী হিসেবে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কাছে প্রস্তাব করেছে। দলীয় মনোনয়ন বোর্ডও আমাকে প্রার্থী হিসেবে চূড়ান্ত করবে বলে আশা করি।’

সিলেটে মেয়র পদপ্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন সাবেক মেয়র মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান।

তিনি ছাড়াও মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক কাউন্সিলর ফয়জুল আনোয়ার এবং অধ্যাপক জাকির হোসেন।

এদিকে বরিশাল সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থী হতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম তুলেছেন বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাদিক আবদুল্লাহ। তার পক্ষে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেন মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম আব্বাস চৌধুরী। তার সঙ্গে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনুস ও মহানগরের সাধারণ সম্পাদক এ কে এম জাহাঙ্গীর।

গোলাম আব্বাস চৌধুরী বলেন, ‘বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগ সর্বসম্মতিক্রমে সাদিক আবদুল্লাহকে মনোনয়নের জন্য প্রস্তাব করেছে। জেলা আওয়ামী লীগও আমাদের প্রস্তাব সমর্থন করেছে।’

এছাড়াও বরিশাল সিটির মেয়র পদপ্রার্থী হতে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন কৃষক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি খান আলতাফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জাহিদ ফারুক, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ, সহ-সভাপতি মীর আমিন উদ্দিন ও সদস্য মাহমুদুল হক খান।

নিউজবিডি৭১/আ/২১ জুন ,২০১৮




৩ সিটিতে বিএনপির প্রার্থী ১২ জন

ডেস্ক রিপোর্ট
নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : আগামী ৩০ জুলাই অনুষ্ঠিতব্য তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপির ১২ জন প্রার্থী ও তাদের প্রতিনিধিরা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন। বুধবার বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর কাছ থেকে এই মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন তারা। নগদ ১০ হাজার টাকা জমা দেন। বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টার মধ্যে মনোয়নপত্র জমা দিতে হবে এবং রাতে গুলশান কার্যালয়ে প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার হবে বলে জানা গেছে।

তিন সিটিতে মেয়র পদে বিএনপির মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেন যাঁরা-

রাজশাহী : রাজশাহী সিটি করপোরেশনের বর্তমান মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলের পক্ষে মনোনয়ন পেয়েছেন রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু।

সিলেট : বিএনপির পক্ষ থেকে সিলেটে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন পাঁচজন। এরা হলেন-মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসেন, মহানগর বিএনপির সহসভাপতি রেজাউল কয়েস হাসান লোদী, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম, ছাত্রদল নেতা সানাউল্লাহ রিমন ও সিলেটের বর্তমান মেয়র আরিফুল হক।

বরিশাল : বরিশালে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন বিএনপির ছয় প্রার্থী। এঁরা হলেন- বরিশাল দক্ষিণের সহসভাপতি এবাদুল হক চান, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আফরোজা খানম নাসরিনের পক্ষে ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সদস্য আব্বাস উদ্দীন, বরিশালের বর্তমান মেয়র আহসান হাবিব কামালের পক্ষে বিএনপির প্রশিক্ষণবিষয়ক সম্পাদক এ বি এম মোশাররফ হোসেন, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহর পক্ষে জহির উদ্দীন মোহাম্মদ বাবুল, বরিশাল বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন ও সাবেক ছাত্রনেতা বরিশাল মহানগর আলী হায়দার বাবু।

নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ তারিখ আগামী ২৮ জুন। আর নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করা যাবে ৯ জুলাই পর্যন্ত।

২০১৩ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে এই তিন সিটি করপোরেশনে বিএনপির প্রার্থীরা আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের হারিয়ে মেয়র নির্বাচিত হন।

নিউজবিডি৭১/আ/২১ জুন ,২০১৮




‘ অক্টোবরে নির্বাচনকালীন সরকার ’

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : ‘অক্টোবরে নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে নির্বাচনকালীন সরকার হবে ছোট। বিষয়টি পুরোপুরি প্রধানমন্ত্রীর এখতিয়ারে।’-এভাবেই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকালীন সরকার গঠনের সম্ভাবনার কথা জানিয়েছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সেই নির্বাচনে সংসদের বাইরে থাকা অন্যতম রাজনৈতিক দল বিএনপি না আসলেও আরো অনেক দল এতে অংশগ্রহণ করবে বলেও মন্তব্য করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী। জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এবার অংশগ্রহণকারী দলের সংখ্যা গতবারের চেয়ে বেশি হবে বলেও ধারণা দেন তিনি।

বুধবার সচিবালয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এসব কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপি রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেট সিটি করপোরেশনের জন্য মনোনয়নপত্র বিক্রি করছে। তাহলে জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণে সমস্যা কোথায়? সংবিধান অনুযায়ী, নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধি অনুযায়ী নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এখানে কোনো কিছু লঙ্ঘিত হচ্ছে কি না?’

‘এবার বিএনপির জন্য অন্যরা অপেক্ষা করবে না। বহু দল অংশগ্রহণ করবে। এবার পার্টিসিপেশন অনেক বেশি হবে’বলেন ওবায়দুল কাদের।

নিউজবিডি৭১/আ/২১ জুন ,২০১৮




৩ সিটি নির্বাচনে একক প্রার্থী দেবে ২০ দল

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : বরিশাল, রাজশাহী এবং সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে জোটের পক্ষ থেকে একক প্রার্থী দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট।

বুধবার রাজধানীর গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে জোটের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। সিটি নির্বাচন নিয়ে পরবর্তী করণীয় ঠিক করতে ২৭ জুন আবারও সভা ডাকা হয়েছে। এদিনের সভায় জোটনেত্রী ও বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জন্য ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা গ্রহণ ও নিঃশর্ত মুক্তি দাবি জানানো হয়।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভূঁইয়া বলেন, গাজীপুরসহ চার সিটি নির্বাচনে জোটগতভাবে কাজ করবে ২০ দল। খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে বিএনপির পাশে থাকারও সিদ্ধান্ত হয়েছে ২০ দলের। এই আন্দোলন ধীরে ধীরে বেগবান করার বিষয়েও আলোচনা হয়েছে।

জানা গেছে, গাজীপুর সিটিসহ তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের কর্মপরিকল্পনা নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়। একপর্যায়ে জামায়াতের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য আব্দুল হালিম সিলেটে তাদের মেয়র প্রার্থীর কথা উল্লেখ করেন।

তিনি বলেন, সিলেট মহানগর শাখার আমির অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়েরকে তারা প্রার্থী হিসেবে চাইছেন। তবে তিনি এও বলেন, মেয়র প্রার্থী করার ক্ষেত্রে জোটের স্বার্থকেই তারা অগ্রাধিকার দেবেন। এর ব্যতিক্রম হবে না। তবে বৈঠকে অন্য শরিক দলগুলোর নেতারা বলেন, বিএনপির প্রার্থীরাই তিন সিটিতেই বর্তমানে মেয়র পদে আছেন। তাই তিন সিটি নির্বাচনে বিএনপি থেকেই প্রার্থী করার ব্যাপারে তারা মত দেন।

সভায় বরিশাল, রাজশাহী, সিলেটে জোটের পক্ষ থেকে একক প্রার্থী মনোনয়ন দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

সকাল ১১টায় শুরু হয়ে দুপুর ১২টায় শেষ হয় বৈঠক। এতে সভাপতিত্ব করেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। উপস্থিত ছিলেন জামায়াতের কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য আব্দুল হালিম, জাতীয় পার্টির (জাফর) মহাসচিব মোস্তোফা জামাল হায়দার, বিজেপি চেয়ারম্যান আন্দালিব রহমান পার্থ, এনডিপি চেয়ারম্যান খন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা, এনপিপি চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, খেলাফত মজলিশের মহাসচিব ড. আহমেদ আব্দুল কাদের।

এছাড়া বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তোফা ভুঁইয়া, জাগপা সভাপতি রেহেনা প্রধান, কল্যাণ পার্টির মহাসচিব এম এম আমিনুর রহমান, বিএমএল সভাপতি এ এইচ এম কামরুজ্জামান খান, লেবার পার্টি একাংশের চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, অন্য অংশের মহাসচিব হামদুল্লাহ আল মেহেদি, ডিএলের সাইফুদ্দিন মনি, পিপলস লীগের সৈয়দ মাহবুব হোসেন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মুফতি মহিউদ্দিন ইকরাম, ইসলামিক পার্টির চেয়ারম্যান আবু তাহের চৌধুরী, ইসলামীক ঐক্যজোট চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট এম এ রাকিব উপস্থিত ছিলেন।

সভায় জাতীয় পার্টি (জাফর) প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক ডেপুটি মেয়র খালেকুজ্জামান চৌধুরীর ইন্তেকালে গভীর শোক প্রকাশ করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করা হয়। এছাড়া বৈঠকে মাদক নির্মূলের নামে বিচারবহির্ভূত হত্যার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।

নিউজবিডি৭১/আর/ ২০ জুন , ২০১৮




পর্দার আড়ালে বিএনপি কী করছে, সব খবর জানা আছে : কাদের

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : পর্দার আড়ালে বিএনপি কী করছে, এর সবই সরকারের জানা আছে বলে জানিয়েছেন ওবায়দুল কাদের। এ দেশে কোনো ষড়যন্ত্র টিকবে না।

মঙ্গলবার দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে যৌথ সভা শেষে এ কথা বলেন ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ইল্যান্ডের বৈঠক। আরও অনেক জায়গায় তারা ঘুরে বেড়াচ্ছে। ঢাকাতেও এখানে ওখানে গভীর রাতে বৈঠক চলছে। তারা মনে করছে, আমরা জানি না। সব খবরই জানা আছে। এবার কোনো ষড়যন্ত্র টিকবে না। দেশের জনগণ প্রতিহত করবে।

তিনি বলেন, বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে কি নেবে না- এটা তাদের বিষয়। তবে নির্বাচনে অংশ নেয়াটা তাদের গণতান্ত্রিক অধিকার। তিনি প্রশ্ন করেন পৃথিবীর কোন দেশে বিরোধী দলকে ডেকে ডেকে নির্বাচনে অংশ নেয়ায়?

তিনি আরোও বলেন, সিএমএইচ হচ্ছে দেশের সবচেয়ে ভাল হাসপাতাল। নির্বাচনে খালেদা জিয়া সেনাবাহিনী চান, কিন্তু মিলিটারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেবেন না- এটা কেমন কথা?

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপির দেশের জনগণের প্রতি আস্থা নেই। তাই তারা বিদেশিদের কাছে বার বার ধরনা দিচ্ছে । তাদের কাছে অভিযোগ করে দেশকে খাটো করছে। এটা তাদের রাজনৈতিক দেউলিয়াপনা।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আগামী সংসদ নির্বাচনে না এলে কী হবে, তা বিএনপি জানে। তারপরও তারা নির্বাচন নিয়ে নানা ষড়যন্ত্র করছে। বিএনপি আন্দোলনও করতে চায়, আবার নির্বাচনেও অংশ নিতে চায়। বিগত নির্বাচনে অংশ না নিয়ে বিএনপি ভুল করেছে। আবার একই ভুল করলে তারা নিজেরাই সমালোচনার শিকার হবেন।

যৌথসভায় আগামী ২৩ জুন বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের নব নির্মিত ভবন উদ্বোধন, ৭জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সংবর্ধনা দেয়ার কর্মসূচি সফল করার জন্য নেতাকর্মীদের আহ্বান জানানো হয়।

নিউজবিডি৭১/আর/ ১৯ জুন , ২০১৮




খালেদা জিয়া প্যারালাইজড হয়ে যেতে পারেন : ফখরুল

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া যেকোনও মুহূর্তে প্যারালাইজড হয়ে যেতে পারেন বলে আশঙ্কা করছেন তার দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

রবিবার (১৭ জুন) সকালে ঢাকার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

মির্জা ফখরুল বলেন,‘শনিবার (১৬ জুন) কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে তার স্বজনরা দেখা করেছেন। তার শরীরের অবস্থা আগের চেয়ে অনেক নাজুক। তিনি একা হাঁটতে পারছেন না। আমরা আজকের মধ্যে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ইউনাইটেড হাসপাতালে নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।’

কয়েকদিন আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানিয়েছেন, সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন,‘আমরা আগেই বলেছি, খালেদা জিয়া সিএমএইচে যাবেন না।’

রবিবার সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে বিএনপি মহাসচিবের ভাষ্য,‘খালেদা জিয়া জনগণের সম্পদ, জনগণের নেত্রী। তার জীবনের মূল্য আমাদের কাছে অনেক বেশি। আমরা আন্দোলনের মাধ্যমে তাকে মুক্ত করব। জনগণই খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবে। আমরা জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করব, গণতন্ত্রকেও মুক্ত করব।’

নিউজবিডি৭১/আর/ ১৭ জুন , ২০১৮




ঈদের দিনে খালেদার দেখা পেলেন না নেতারা

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : ঈদের দিন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে পারলেন না মির্জা ফখরুলসহ কেন্দ্রীয় নেতারা।

শনিবার (১৬ জুন) চেয়ারপারসনের সঙ্গে দেখা করতে যান মির্জা ফখরুলসহ কেন্দ্রীয় নেতারা। কিন্তু দেখা করার অনুমতি না পাওয়ায় জেলগেট থেকে ফিরে আসতে হয়েছে।

বিএনপির চেয়ারপার্সনের সঙ্গে দেখা করার অনুমতি না পেয়ে জেলগেট থেকে ফিরে গেছেন মির্জা ফখরুলসহ কেন্দ্রীয় নেতারা। এ ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন নেতারা।

নিউজবিডি৭১/আর/ ১৬ জুন , ২০১৮




ঈদের দিন খালেদা জিয়ার খাবারের মেন্যু

নিউজবিডি৭১ডটকম
ঢাকা : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া পাঁচ বছরের সাজার বোঝা মাথায় নিয়ে এখনো পুরাতন কারাগারে রয়েছেন।

দুই মামলায় জামিন হাইকোর্ট থেকে স্থগিত হওয়ায় ঈদের আগে আর বের হওয়ার সম্ভাবনা নেই তার। আর তাই এবার কারাগারেই ঈদ করতে হচ্ছে ৪ মাস ধরে কারাগারে থাকা খালেদাকে। ঈদের দিন কারাগারে থাকা অন্যান্য কয়েদিদের মতো খালেদার জন্যেও রয়েছে খাবারের বিশেষ আয়োজন।

ঈদের দিন ঘুম থেকে উঠেই খালেদা পাবেন পায়েস, সেমাই ও মুড়ি যার সবই কারারক্ষীদের তৈরি। দুপুরের মেন্যুতে রয়েছে নিজের ইচ্ছা অনুযায়ী ভাত অথবা পোলাও পাবেন খালেদা। সঙ্গে থাকবে ডিম, রুই মাছ, মাংস আর আলুর দম। রাতের আয়োজনে থাকছে পোলাও, গরু অথবা খাসির মাংস, ডিম, মিষ্টান্ন, পান-সুপারি এবং কোমল পানীয়।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের (কেরানীগঞ্জ) সিনিয়র জেল সুপার মো. জাহাঙ্গীর কবির বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়ার মেন্যুটা সাধারণ কয়েদিদের মতো হলেও তার জন্য রান্না হবে আলাদাভাবে।’

খালেদার জন্য বিশেষ খাবারের রান্নার মসলা ও পরিমাণ উল্লেখ করা থাকবে কারা চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী। এছাড়াও এসব মেন্যুর বাইরে খালেদা জিয়া অন্য কোনো খাবার খেতে চাইলে কারা কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে পারেন। তবে সেই আইটেম তাকে দিতে বাধ্য নয় কারা কর্তৃপক্ষ।

কারা সূত্র জানিয়েছে, শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত বিশেষ কোনো আইটেম তৈরির বিষয়ে কারা কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেননি খালেদা জিয়া।

এদিকে কারাগারের খাবার ছাড়াও পরিবারের সদস্যদের পাঠানো খাবার খেতে পারবেন খালেদা। জাহাঙ্গীর কবির বলেন, ‘ঈদের দিন অনুমতি সাপেক্ষে পরিবারের সদস্যরা তার সঙ্গে দেখা করতে পারবেন। এছাড়াও এদিন আমরা পরিবারের খাবার একসেপ্ট করি।’

তবে পরিবারের আনা খাবারগুলো পরীক্ষা-নিরীক্ষা করবে কারা কর্তৃপক্ষ।

এদিকে খালেদার পাশাপাশি একই খাবার পাবেন আদালতের অনুমতি নিয়ে তার সহযোগিতায় কারাগারে গৃহকর্মী ফাতেমা বেগম (৩৫)। খালেদার সঙ্গে ফাতেমার পরিবারের লোকজনও তার সঙ্গে কারাগারে দেখা করতে যাবেন বলে জানা গেছে।

এর আগে ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৫ বছরের সাজা ঘোষণার দিন থেকে নাজিমুদ্দিন রোডের পুরাতন কারাগারে আছেন খালেদা জিয়া। কয়েকবার জামিনে কারাগার থেকে বের হওয়ার চেষ্টা করলেও একাধিক মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখানোয় জামিন প্রক্রিয়াটা জটিল হয়ে পড়ে। তাই এবার কারাগারেই ঈদ করতে হচ্ছে খালেদাকে।

এদিকে আদালতের অনুমতি নিয়ে খালেদার সঙ্গে থাকছেন ফাতেমা বেগম। ফাতেমা দীর্ঘদিন ধরে খালেদা জিয়ার গৃহপরিচারিকা হিসেবে কাজ করছেন। কারাগারে খালেদা জিয়ার সঙ্গে একই সেলে থাকছেন ফাতেমা বেগম।

দীর্ঘদিন ধরে খালেদা জামিন নিয়ে আলোচনা হলেও বর্তমানে তার চিকিৎসা নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে রাজনীতিক অঙ্গন। এতে কারা কর্তৃপক্ষও কিছুটা ‘উদ্বিগ্ন’।

শনিবার খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তার ব্যক্তিগত চার চিকিৎসক সাংবাদিকদের জানান, খালেদা জিয়া ‘মাইল্ড স্ট্রোক’করেন। তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হোক।

পরদিন কারা মহাপরিদর্শক (আইজি-প্রিজন্স) সৈয়দ ইফতেখার উদ্দীন স্ট্রোকের কথা উড়িয়ে দিয়ে বলেন, ‘তিনি (খালেদা জিয়া) পুরো অজ্ঞান হননি। সামান্য ভারসাম্য হারিয়েছিলেন। তিনি চাইলে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য মঙ্গলবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) নেয়া হবে।’

তবে মঙ্গলবার কারা কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বিএসএমএমইউ’তে যেতে রাজি হননি খালেদা। পরিবারের পক্ষ থেকে তাকে ব্যক্তিগত খরচে ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসার আবেদন করা হয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে। সেই আবেদন অমীমাংসিত রেখেই তাকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) নেয়ার প্রস্তাব দেয় কারা কর্তৃপক্ষ। তবে শুক্রবার পর্যন্ত তিনি সিএমএইচে গিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে রাজি হননি।

নিউজবিডি৭১/আর/ ১৫ জুন , ২০১৮